Thursday, July 23rd, 2020

now browsing by day

 
Posted by: | Posted on: July 23, 2020

“দক্ষিণ এশিয়ায় গণতন্ত্র : নির্বাচন এবং নির্বাচন কমিশন” শীর্ষক গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ

“দক্ষিণ এশিয়ায় গণতন্ত্র : নির্বাচন এবং নির্বাচন কমিশন” (Democracy in South Asia: Election and Election Commission)শীর্ষক গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশিত। গ্রন্থটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক গবেষকদের জন্য রিসোর্স এবং রেফারেন্স বুক হিসেবে কাজ করবে বলে বিশেষজ্ঞ মহল অভিমত ব্যাক্ত করেছেন।বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ ও ডঃ সাবের আহমদ চৌেধুরীর সম্পাদনায় গ্রন্থটি প্রকাশিত হয়।

Posted by: | Posted on: July 23, 2020

হাটহাজারী স্কুলে বিজ্ঞানভবন নির্মাণ উদ্বোধন করলেন তথ্যমন্ত্রী ও ভারতের হাইকমিশনার

ঢাকা, ২৩ জুলাই, ২০২০ (বাসস) : চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আলিপুর রহমানীয়া স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান ভবন নির্মাণকাজ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ও ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলী দাশ।
আজ দুপুরে সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষ থেকে তথ্যমন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে এবং ভারতের হাইকমিশনার তার কার্যালয় থেকে সভা প্রধান হিসেবে ভিডিও কনফারেন্সে ভারতীয় সহায়তায় এ নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন।
চট্টগ্রামে ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনের দায়িত্বে থাকা অনিন্দ্য ব্যানার্জীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগ দেন চট্টগ্রাম-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।
তথ্যমন্ত্রী এ নির্মাণ প্রকল্প এবং ইতিপূর্বেও এ ধরণের উদ্যোগ নেয়ার জন্য ভারত সরকারের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘যখনই বাংলাদেশ এবং ভারতের সম্পর্কে কথা আসে, তখনই আমাদের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতের ঐতিহাসিক ভূমিকা, ভারতের জনগণ ও সরকারের অকুণ্ঠ সমর্থন এবং সহায়তার জন্য কৃতজ্ঞতা জানাতে হয়।’
ড. হাছান মাহমুদ এসময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মুক্তিযুদ্ধ ও ১৫ আগস্টের সকল শহীদ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে প্রাণদানকারী ভারতীয় সেনা সদস্যদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান।
তিনি বলেন, ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্ক অকৃত্রিম এবং ঐতিহাসিক। ভারতের পার্শ্ববর্তী রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ এবং অন্যান্য রাজ্যসহ অনেক রাজ্যে আমরা একই ভাষায় কথা বলি, একই পাখির কলতান শুনি, একই নদীর অববাহিকায় আমরা জন্মগ্রহণ করেছি, বেড়ে উঠেছি।
ভারত সরকার বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে অব্যাহতভাবে ভূমিকা রেখে চলেছে উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে বহুমাত্রিক সহযোগিতার পাশাপাশি গত ২১ জুলাই ভারতের পণ্যবাহী জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার আনলোড করার পর তা বাংলাদেশের সড়কপথে পরিবহণ করে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে পৌঁছার মধ্যদিয়ে দু’দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় উন্নীত হয়েছে। আমি মনে করি, এটি যদি অব্যাহত থাকে, তাহলে ভারত এবং বাংলাদেশ উভয় দেশই উপকৃত হবে।’
হাছান মাহমুদ বলেন, প্রতিবেশি দেশের উন্নয়ন ব্যতিরেকে অন্য দেশের উন্নয়ন টেকসই হয়না -এটি ভারত এবং বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ উপলব্ধি করেছেন বিধায় আমাদের সম্পর্ক ও সহযোগিতার ক্ষেত্রে ইতোমধ্যে আমরা বহুমাত্রিকতা স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছি।
সভা প্রধান রিভা গাঙ্গুলী দাশ তার বক্তৃতায় শিক্ষা বিস্তারের কাজে যুক্ত হতে পেরে আনন্দ প্রকাশ করেন এবং এ সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে জানান। এমপি আনিসুল ইসলাম মাহমুদ তার নির্বাচনী এলাকায় এ সহযোগিতার জন্য ভারত সরকারকে ধন্যবাদ দেন।

Posted by: | Posted on: July 23, 2020

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন কর্মকর্তা বহিষ্কার,প্রশাসনে স্বস্তি

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) তিন কর্মকর্তাকে অবশেষে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।বহিষ্কৃত তিন কর্মকর্তা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক এটিজিএম গোলাম ফিরোজ, উপ-রেজিস্ট্রার মোর্শেদুল আলম রনি ও হিসাব শাখার উপ-পরিচালক খন্দকার আশরাফুল আলম।দুর্নীতি দমন কমিশনের(দুদক) করা মামলায় চার্জশিটভুক্ত আসামি হওয়া সত্ত্বেও দীর্ঘদিন থেকে বহাল তবিয়তে ছিলেন।

একই মামলার আসামী হওয়ায় উপ-রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ শাহজাহান আলী মন্ডলকে সে সময় বহিষ্কার করলেও রহস্যজনক কারণে এ তিনজনের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয়  কর্তৃপক্ষ। এ বিষয়ে গত বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৬ জন কর্মকর্তা লিখিতভাবে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দিলেও ওই তিন কর্মকর্তার ব্যপারে নীরব থাকে প্রশাসন। আলোচিত ওই মামলায় দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো জেল খেটেছেন বেরোবির সাবেক উপাচার্য আব্দুল জলিল মিয়া।

দুদকের মামলার নথি এবং ওই তিনজনের মুচলেকা দিয়ে জামিন নেয়ার কাগজপত্র অনুসন্ধান করে দেখা যায়, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের অনুমোদন ব্যতিত ৩৩৮ জন কর্মচারী কে নিয়োগ ও শর্ত পূরণ ছাড়াই পারস্পরিক যোগসাজশে উচ্চতর পদে নিয়োগের অভিযোগে দুদকের রংপুর সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আব্দুল করিম ২০১৩ সালের অক্টোবরে দন্ডবিধি ধারা: ৪০৯/১০৯, তৎসহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ৫(২) ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন (যার নম্বর-স্পেশাল কেস নম্বর- ৮/২০১৭, কোতয়ালী থানার মামলা নম্বর- ৪০/২০১৩, জি আর কেস নম্বর ১০৯৮/১৩)।

ওই মামলায় বেরোবির উপ-রেজিস্ট্রার শাহজাহান আলী মন্ডল, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক এটিজিএম গোলাম ফিরোজ, উপ-রেজিস্ট্রার মোর্শেদুল আলম রনি ও হিসাব শাখার উপ-পরিচালক খন্দকার আশরাফুল আলমসহ তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক আব্দুল জলিল মিয়াকে মামলায় আসামি করা হয়।

দুদক দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ১৯ মার্চ বিশেষ জজ আদালত রংপুর এর নিকট উক্ত পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত একই বছরের ২০ জুলাই চার্জশিট আমলে নিয়ে আদালতে হাজির উপ-রেজিস্ট্রার শাহজাহান আলী মন্ডল ও সাবেক ভিসি অধ্যাপক আব্দুল জলিল মিয়াকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এছাড়া অন্যদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

ওই বিচারিক আদালতে ২০১৭ সালের ২১ অক্টোবর অভিযুক্ত তিন কর্মকর্তা এটিজিএম গোলাম ফিরোজ, মোর্শেদুল আলম রনি ও খন্দকার আশরাফুল আলমকে অভিযোগ হতে অব্যাহতি দেয়। কিন্তু দুদক ওই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল (নম্বর ৩৮৯/২০১৮) দায়ের করলে হাইকোর্ট ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি নিম্ন আদালতে তাদের অব্যাহতি দেয়ার আদেশ বাতিল করে রুল জারি করেন। অভিযুক্ত তিনজনকে রংপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আত্মসমর্পণের আদেশ দেন। সে অনুযায়ী ২০১৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি এটিজিএম গোলাম ফিরোজ, মোর্শেদুল আলম রনি ও খন্দকার আশরাফুল আলম হাজির হয়ে ২০ হাজার টাকা মুচলেকা প্রদান করে আদালত থেকে জামিনে নেন। এখনো তারা জামিনে আছেন।

দুদক দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ১৯ মার্চ বিশেষ জজ আদালত রংপুর এর নিকট উক্ত পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত একই বছরের ২০ জুলাই চার্জশিট আমলে নিয়ে আদালতে হাজির উপ-রেজিস্ট্রার শাহজাহান আলী মন্ডল ও সাবেক ভিসি অধ্যাপক আব্দুল জলিল মিয়াকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এছাড়া অন্যদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

ওই বিচারিক আদালতে ২০১৭ সালের ২১ অক্টোবর অভিযুক্ত তিন কর্মকর্তা এটিজিএম গোলাম ফিরোজ, মোর্শেদুল আলম রনি ও খন্দকার আশরাফুল আলমকে অভিযোগ হতে অব্যাহতি দেয়। কিন্তু দুদক ওই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল (নম্বর ৩৮৯/২০১৮) দায়ের করলে হাইকোর্ট ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি নিম্ন আদালতে তাদের অব্যাহতি দেয়ার আদেশ বাতিল করে রুল জারি করেন। অভিযুক্ত তিনজনকে রংপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আত্মসমর্পণের আদেশ দেন। সে অনুযায়ী ২০১৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি এটিজিএম গোলাম ফিরোজ, মোর্শেদুল আলম রনি ও খন্দকার আশরাফুল আলম হাজির হয়ে ২০ হাজার টাকা মুচলেকা প্রদান করে আদালত থেকে জামিনে নেন। এখনো তারা জামিনে আছেন।

বর্তমানে উচ্চ আদালতের নির্দেশ ও জামিনের তথ্য গোপন করে প্রায় দেড় বছর যাবৎ তারা চাকরিতে বহাল তবিয়তে রয়েছেন। কিন্তু চাকরি বিধি অনুযায়ী, আত্মসমর্পণের পর জামিনে মুক্তি লাভ করলেও সাময়িক বরখাস্ত থাকার কথা। উচ্চ আদালতের নিদের্শনার বিষয়টি দুদকের জেলা অফিস থেকে বিশ্ববিদ্যালয়কে লিখিতভাবে জানানো হলেও অজ্ঞাত কারণে বিষয়টি আমলে নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ একজন শিক্ষক, চার কর্মকর্তা ও সাত কর্মচারীকে গ্রেফতার বা জামিনে থাকার কারণে সরকারি চাকরি বিধি অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত করে রেখেছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যলয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ, অভিযুক্ত তিনজনকে আজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানান। এ বিষয়ে তিনি বলেন এ ঘটনাটি দ্বিতীয় উপাচার্য জলিল মিয়ার আমলের, যে মামলায় জলিল মিয়া নিজেও জেল খেটেছেন উনার আমলে অবৈধভাবে শিক্ষক কর্মকর্তা কর্মচারীদের নিয়োগ দিয়ে যে সিন্ডিকেট তৈরি করে গেছেন তার ফল বিশ্ববিদ্যালয়কে এখনো ভোগ করতে হচ্ছে।

Posted by: | Posted on: July 23, 2020

বিশ্বের সর্ববৃহৎ জলবায়ু উদ্বাস্তু পুনর্বাসন প্রকল্পের উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিববর্ষে দেশের একটি মানুষকেও গৃহহীন না রাখার অঙ্গীকার পুণর্ব্যক্ত করে কক্সবাজারে বিশ্বের বৃহত্তম জলবায়ু উদ্বাস্তু পুনর্বাসন প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন।
প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কানফারেন্সের মাধ্যমে কক্সবাজারে ‘খুরুশকুল আশ্রয়ণ প্রকল্প’ নামে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করেন।
জলোচ্ছ্বাসের হাত থেকে রক্ষা পেতে অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী উপকূলবাসীকে বেশি করে গাছ লাগানোর পাশাপাশি প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা মোকাবেলায় দেশবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বানও পুণর্ব্যক্ত করেন।
প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্বোধনের ফলে কক্সবাজার সদরের খুরুশকুল ইউনিয়নের বাঁকখালী নদীর তীর ঘেঁষা বৃহৎ এ প্রকল্পে নির্মিত ২০টি পাঁচ তলা বিশিষ্ট ভবনে ৬শ’টি পরিবার নতুন ফ্ল্যাট পেল। প্রতিটি পাঁচতলা ভবনে থাকছে ৪৫৬ বর্গফুট আয়তনের ৩২টি করে ফ্ল্যাট। পর্যায়ক্রমে ৪ হাজার ৪০৯টি পরিবার এখানে ফ্ল্যাট পাবে।
প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. মাহবুব হোসেন বুধবার এই প্রকল্প সম্পর্কে ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘প্রতিটি পরিবার এখানে ১০০১ টাকার বিনিময়ে একটি প্রায় ৪৫৬ বর্গ ফুটের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত ফ্লাট পাবে। যেখানে প্রতিবন্ধীদের জন্য পৃথক র‌্যাম্প, সোলার প্যানেল, বিশুদ্ধ পানির সুবিধা, বিদ্যুৎ, স্যানিটেশন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, ড্রেনেজ ব্যবস্থা এবং গ্যাস সিলিন্ডার সম্বলিত চুলার ব্যবস্থা থাকবে।’
তিনি বলেন, ‘এই প্রকল্পে ২৫৩ দশমিক ৫৯ একর জমির ওপর নির্মাণাধীন ১৩৯টি ৫ তলা বিশিষ্ট ভবনে ৪ হাজার ৪০৯টি পরিবার পুণর্বাসিত হবে। যার ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮শ’ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। প্রকল্প এলাকায় ২০ কিলোমিটার অভ্যন্তরীণ রাস্তা, ৩৬ কিলোমিটার ড্রেনেজ ব্যবস্থা, বর্জ্য পরিশোধন ও নিষ্কাশন ব্যবস্থাপনা, তীর রক্ষা বাঁধ, ছোট সেতু, ১৪টি খেলার মাঠ, মসজিদ, মন্দির, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পুলিশ ও ফায়ার স্টেশন, তিনটি পুকুর, নদীতে দু’টি জেটি এবং দুটি বিদ্যুতের সাবস্টেশন থাকবে।’
প্রকল্পে আবাসন, পর্যটন ব্যবস্থা, শুটকি পল্লী বা ‘শুটকি মহল’ এবং সবুজ বনায়নসহ চার ধরনের সুবিধা থাকবে বলেও তিনি জানান।
প্রকল্প পরিচালক বলেন, ‘এটাই দেশের সবচেয়ে বড় আশ্রয়ণ প্রকল্প এবং জলবায়ু উদ্বাস্তুদের জন্য দেশের প্রথম আশ্রয়ণ প্রকল্প। জলবায়ু উদ্বাস্তু পরিবারগুলোর জন্য এখানে যে পুনর্বাসন, এটাকে আমরা বিশ্বের বৃহত্তম জলবায়ু পুনর্বাসন প্রকল্প বলতে পারি,এ ধরনের প্রকল্প পৃথিবীতে বিরল।’
তিনি আরে বলেন, ১৯৯১ সালের প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় ও জ্বলোচ্ছাসে কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকায় ক্ষতিগ্রস্থ এবং পরবর্তীতে কুতুবদিয়া পাড়া, নাজিরাটেক এবং সমিতি পাড়া এলাকায় বসতি স্থাপনকারি জনগণ যারা কক্সবাজার বিমানবন্দর সম্প্রসারণ ও আধুনিকায়নের জন্য ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল তাঁদের পুনর্বাসনের জন্যই মূলত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ উদ্যোগ।
প্রকল্পের নির্মাণ কাজের দায়িত্বে থাকা সেনাবাহিনীর দশম পদাতিক ডিভিশনের জিওসি এবং এরিয়া কমান্ডার মো. মাঈন উল্লাহ চৌধুরী পৃথকভাবে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বলেন, ‘এটি অত্যন্ত নয়নাভিরাম একটি জায়গা। এ জায়গাটিকে সুরক্ষিত করার জন্য মাটিকে অনেক উঁচু করা হয়েছে। প্রতিটি ভবনের নিচের তলায় কোনো ফ্ল্যাট রাখা হয়নি। ফলে ঘূর্ণিঝড় হলে জলোচ্ছ্বাসের পানি ঢোকারও আশঙ্কা নেই।’বাসস
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একটি সূত্র জানায়, ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসেই গৃহহীন ও ছিন্নমূল মানুষের পুনর্বাসনের জন্য ১৯৯৭ সালে ‘আশ্রয়ণ’ নামে প্রথম প্রকল্প গ্রহণ করেন শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার। এরপর ২০১০ সালে আওয়ামী লীগ সরকার আবার ক্ষমতায় আসলে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প শুরু হয়। এ প্রকল্পের মাধ্যমে ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল ৩ লাখ ১৯ হাজার ১৪০টি পরিবার ঘর পেয়েছে।

Posted by: | Posted on: July 23, 2020

রাঙ্গুনিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের মৃত্যুতে তথ্যমন্ত্রীর শোক

ঢাকা, ২৩ জুলাই, ২০২০ (বাসস) : তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করেছেন ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মহানগরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি স্ত্রী, দুই কন্যা ও এক পুত্র সন্তান রেখে ৯৪ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন (ইন্না…রাজিউন)।
ড. হাছান মাহমুদ তার শোকবার্তায় বলেন, প্রয়াত খলিলুর রহমান দীর্ঘ ১৫ বছর রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি থাকাকালে অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবেও সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই মানুষটি জনহিতকর কাজে নিজেকে ব্যাপৃত রেখেছিলেন।
রাঙ্গুনিয়ার সন্তান তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান আন্তরিকভাবে প্রয়াতের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন ও শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।