সাংস্কৃতিক বিকাশ ছাড়া মৌলবাদের উত্থানকে রোধ সম্ভব নয়: কে এম খালিদ

আইরিন নাহারঃ

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, আজকে যে মৌলবাদের উত্থান এটি শুধু সাংস্কৃতিক অঙ্গনে পরিচার্যার অভাবে। সাংস্কৃতিক অঙ্গনের বিকাশ ছাড়া আমরা মৌলবাদের উত্থানকে রোধ করতে পারব না।

রোববার (১৭ অক্টোবর) দুপুর ১২টায় মাগুরা সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে মাগুরা জেলার সাংস্কৃতিক এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুল আলমের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পঙ্কজ কুন্ডু, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবু নাসির বাবলু, পৌর মেয়র খুরশীদ হায়দার টুটুল প্রমুখ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ধর্মের নামে সংস্কৃতির মধ্যে অপসংস্কৃতিকে ঢুকিয়ে দিয়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ২১ বছর সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে আমাদের সংস্কৃতির যেমন জৌলুস ছিল সেটিকে ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত সেটাকে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। এক সময় গ্রামগঞ্জে যাত্রাপালা, জারিগান, সারিগান, নবান্ন উৎসব, শরৎ উৎসব ও বর্ষবরণ হতো। এ সবকিছুই মৌলবাদের রক্ত চক্ষুর কারণে আমরা করতে পারতাম না। এক সময় সকালে ঘর থেকে বের হলে আশপাশের বাড়ি থেকে গানের রেওয়াজের শব্দ পেতাম। এটিও বন্ধ হয়ে গেছে। এর কারণ হলো আমাদের সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের বিকেন্দ্রীকরণের অভাব। অতীতে স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তির রাষ্ট্র পরিচালনা করায় ওই শক্তিকে পৃষ্ঠপোষকতা  করেছে। সেই জায়গা থেকে আমরা উঠে আসার চেষ্টা করছি।

কে এম খালিদ আরও বলেন, সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে আরও সমৃদ্ধ করতে বর্তমান সরকার দেশের ১৬টি জেলায় আধুনিক শিল্পকলা একাডেমি গড়ে তোলার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে মাগুরায় প্রায় ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে আধুনিক মানের একটি শিল্পকলা একাডেমি ভবন নির্মাণ করার প্রস্তাব চূড়ান্ত অনুমোদনের অপক্ষায় রয়েছে।

এর আগে প্রতিমন্ত্রী  কে এম খালিদ মাগুরা জেলা সরকারি গণগ্রন্থাগার, শহীদ সৈয়দ আতর আলী গণগ্রন্থাগার ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি পরিদর্শন করেন।