Main Menu

দৈনিক সংগ্রামের বার্তা সম্পাদক শাহাদাত কারাগারে

আদালত

এদিন শাহাদাত হোসেন আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তার আইনজীবী রাজ্জাক জামিনের আবেদন করেন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আজাদ রহমান এ জামিনের বিরোধিতা করেন।

গত ২২ অক্টোবর এই মামলায় একই আদালত সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজীর জামিন নামঞ্জুর কারাগারে পাঠিয়েছেন। এরপর থেকে তিনি কারাগারে রয়েছেন।

মামলার অভিযোগে থেকে জানা যায়, ২০১৩ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসি হয়। তখন কাদের মোল্লাকে ‘কসাই কাদের’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। দেশের সর্বোচ্চ আদালত কাদের মোল্লাকে দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ড দেন। ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর হয়। কিন্তু রাজাকার অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তির দোসররা দেশের বিরুদ্ধে, মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে এবং সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালের ১২ ডিসেম্বর দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার প্রথম পাতায় ‘শহীদ আবদুল কাদের মোল্লার ষষ্ঠ শাহাদাতবার্ষিকী আজ’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদনে বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দেওয়া হয়।

এরপর ২০১৯ সালের ১৩ ডিসেম্বর দৈনিক সংগ্রামের সম্পাদক আবুল আসাদ ও প্রধান প্রতিবেদক রুহুল আমিন গাজীসহ আট জনের বিরুদ্ধে আফজাল হোসেন নামে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এ মামলা দায়ের করেন।






Related News