Main Menu

জামায়াত ছাড়তে চায় বিএনপি

বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে দেশি-বিদেশির চাপ, নিন্দা ও সমালোচনার ঝড় দুই দলের সম্পর্কের ওপর দিয়ে বয়ে গেলেও দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক মিত্র বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে ছাড়েনি বিএনপি। তবে এবার জামায়াতকে ছাড়তে চায় বিএনপি। কিন্তু জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে এখনো আনুষ্ঠানিক কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি দলটি। এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে আলোচনা চলমান থাকবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে এসব তথ্য জানা গেছে।

১৯৭১ সালে যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় দলের শীর্ষ নেতাদের ফাঁসি ও দণ্ড কার্যকর হয়েছে। অপরদিকে রাজনৈতিক দল হিসেবে নির্বাচন কমিশন থেকে নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় বেকায়দায় রয়েছে জামায়াতের নেতৃত্ব। তাই প্রকাশ্যে দলীয় কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে না পারায় বিএনপির কাঁধে ভর করা ছাড়া উপায় নেই দলটির। তাই বিদ্যমান পরিস্থিতিতে কৌশল পাল্টে সরকারের চাপ এবং বিদেশিদের চোখে ধুলো দিতে রাজনৈতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে রাখঢাক করে চলেছে বিএনপি ও জামায়াত।

তবে গত শনিবার ভার্চুয়াল বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠকে জামায়াত ছাড়া নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে জামায়াতের সঙ্গ ছাড়ার বিষয়ে চূড়ান্ত কোন সিদ্ধান্ত না হলেও এ বিষয়ে আলোচনা চলমান থাকবে।

এ বিষয়ে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বক্তব্যে তুলে ধরেছেন একজন। তিনি হলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। জামায়াতের সাথে সম্পর্ক রেখে বিএনপির লাভ ও ক্ষতি তুলে ধরেন তিনি। তবে খসরু বক্তব্যের পরে আর কেউ বক্তব্য রাখার সুযোগ পায়নি। তাই জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে আলোচনা বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে চলমান থাকবে বলেও জানান তিনি।

জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে জানতে চাইলে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির শীর্ষ আরেক সদস্য বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে আলোচনা এখনো শেষ হয়নি। এটা চলমান থাকবে।






Related News