Main Menu

‘বিদ্রোহীদের মদদ দিলে অ্যাকশন’

প্রেসওয়াচ রিপোর্টঃ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দেশের স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানে নির্বাচন উপলক্ষে দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়ার প্রস্তাব আসছে। তা জেনে-শুনে, যাচাই-বাছাই করে মনোনয়ন দিতে হবে। যারা আগে বিদ্রোহ করেছেন, দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করছেন, তাদের মনোনয়ন দেওয়ার প্রশ্নই আসে না। তারা বিজয়ী হন অথবা পরাজিত হন, তাদের অবশ্যই মনোনয়ন দেওয়া হবে না। এ বিষয়টি বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে স্পষ্ট জানিয়ে দিতে চাই।’

কাদের এ সময় হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘পেছনে থেকে এমপি, মন্ত্রী, জেলা পর্যায়ের বা কেন্দ্রীয় কোনও নেতা যদি বিদ্রোহ প্রার্থীদের মদদ দিয়ে থাকেন, তাহলে তাদের বিরুদ্ধেও দল ডিসিপ্লিনারি অ্যাকশন নেবে। এ বিষয়টি পরিষ্কার করে বলে দিতে চাই।’

শুক্রবার (১১ ডিসেম্বর) ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির উদ্যোগে আয়োজিত বিভিন্ন ধর্মীয় ও স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান এবং দেশের প্রতিটি বিভাগীয় সদর দফতরে করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

উপ-কমিটির সদস্য ঘোষণা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা তিনটির মতো উপকমিটি ঘোষণা করেছি। বাকিগুলোর বিষয়ে আমি সম্পাদকদের বলবো। আপনারা আপনাদের উপকমিটি সদস্যদের নাম ঘোষণা করুন। অবিলম্বে আপনাদের তালিকা জমা দিন। কেউ যদি ঘোষিত কমিটিসমূহের ব্যাপারে সংক্ষুব্ধ হন, অথবা কারও কোনও অভিযোগ থাকলে তা আমাদের পার্টির সভাপতির কার্যালয়ে নির্বাচনি ট্রাইব্যুনালে এই অভিযোগগুলো শোনা হবে। নিষ্পত্তি করা হবে। এ ব্যাপারে নেত্রী পরিষ্কার নির্দেশনা দিয়েছেন।’

করোনা সংক্রমণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী করোনার প্রাদুর্ভাবের কারনে বদলে দিয়েছে জীবন প্রবাহ, জীবনের চলমান ধারা। জীবনের প্রয়োজনে মানুষ অভ্যস্ত হচ্ছে নিউ নরমাল জীবনযাত্রায়। বিশ্বে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ, কোথাও কোথাও তৃতীয় ঢেউ আঘাত আনছে। বাংলাদেশে অতিসম্প্রতি সংক্রমণ এবং মৃত্যুর হারের ট্রেন্ড আবার ঊর্ধ্বমুখী হতে চলেছে। বিশেষজ্ঞরা আবার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা করছেন। এ বাস্তবতায় প্রতিরোধ ব্যবস্থা জোরদারের কোনও বিকল্প নেই। তাই তাই শতভাগ মাস্ক পরিধান হতে পারে ভ্যাকসিনের এই মুহূর্তের বিকল্প।’ ওবায়দুল কাদের এ সময় করোনার সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতা কর্মসূচি আরও জোরদার করার কথা বলেন।

ধানমন্ডিতে এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক সামছুন্নাহার চাঁপাসহ বলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নেতৃবৃন্দ।






Related News