Friday, July 31st, 2020

now browsing by day

 
Posted by: | Posted on: July 31, 2020

ঘরমুখো যাত্রী আর যানবাহনের উপচে পড়া ভিড়,ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে ২০ কিলোমিটার জট

ঈদে ঘরমুখো যাত্রী আর যানবাহনের উপচে পড়া ভিড় এখন পাটুরিয়া ফেরিঘাট ও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে। পাটুরিয়া ফেরি ঘাট থেকে মহাসড়কের ২০ কিলোমিটার ব্যাপী যানবাহনের দীর্ঘ জটের সৃষ্টি হয়। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ঘরমুখো হাজারো মানুষ।

ফেরি কর্তৃপক্ষের অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলার কারণে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) মধ্যরাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত তিন ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। এছাড়া যানবাহনের অস্বাভাবিক চাপের কারণে বৃহস্পতিবার মধ্য রাত থেকে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

.

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে যানজট

ফেরি ঘাট সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত পাটুরিয়া ফেরিঘাট তথা ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে যানবাহন চলাচল ছিল স্বাভাবিক। সন্ধ্যার পর থেকে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় ঘরমুখো মানুষ ও যাত্রীবাহী বাসের চাপ বেড়ে যায়। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির চাপও বাড়তে থাকে। ট্রাফিক পুলিশ এবং ঘাট কর্তৃপক্ষের অব্যবস্থাপনার কারণে রাত ২টার পর থেকে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় ফেরিতে ওঠতে যানবাহনের বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। ফেরিতে আগে ওঠার প্রতিযোগিতায় যাওয়ায় ঘাট এলাকায় চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। এতে ফেরিঘাট এলাকায় রাস্তা পন্টুন পুরো ডেড লক হয়ে পরে। এ কারণে বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটা থেকে ফেরিতে যানবাহন লোড ও আনলোড বন্ধ হয়ে যায়। ফলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়ে যায়।

বেশ কয়েকজন যাত্রী অভিযোগ করে বলেন, যাত্রী ও যানবাহন পারাপার নিশ্চিত করতে প্রতি বছরই ঈদের আগে যথাযথ ঘাট ব্যবস্থাপনা দেখা যায়। তবে এবার তেমনটা না থাকায় এই ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ১২-১৪ ঘণ্টা ঘাট এলাকায় আটকে থেকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে।

.বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মহিউদ্দিন রাসেল বলেন, ঘাট এলাকায় ফেরি থেকে যানবাহন আনলোড ও লোড বন্ধ থাকায় ঘাট এলাকায় যানবাহন ও যাত্রীর চাপ বেশি পড়েছে।

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে যানজট

টানা তিন ঘণ্টা ফেরিতে যানবাহন পারাপার বন্ধ থাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে শুক্রবার  ভোর থেকে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। পাটুরিয়া ঘাট থেকে মানিকগঞ্জের তরা সেতু পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার যানজটে শত শত যাত্রীবাহী বাস, প্রাইভেটকারসহ বিভিন্ন গাড়ি আটকা পড়েছে। চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

.বরংগাইল হাইওয়ে পুলিশ ফাাঁড়ি পরিদর্শক বাসুদেব সিনহা জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে ঈদের ঘরমুখো যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ বেড়ে যায়। ঢাকার দিকে রওনা দেওয়ার সময় ইচ্ছেমতো চলাচলের কারণে পথ আটকে যায়। এছাড়া কোরবানির পশুবাহী গাড়ির কারণেও মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বেড়ে যাওয়ায় যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

.তিনি আরও জানান, ফেরি চলাচলে বিঘ্ন  ও অতিরিক্ত গাড়ির চাপের কারণে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৯টা পর্যন্ত পাটুরিয়া থেকে তরা পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকায় যানজট ছিল। তবে এর পর থেকে যানজট কমে আসতে শুরু করেছে।

Posted by: | Posted on: July 31, 2020

ভোলার সাত উপজেলায় উদযাপন হচ্ছে ঈদুল আজহা

ভোলার সাত উপজেলার ২০ গ্রামের ১৫ হাজার মানুষ শুক্রবার ঈদুল আজহা উদ্যাপন করছেন।

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের মুলাইপত্তন গ্রামের মজনু মিয়ার বাড়ির দরজায় শুরেশ্বরের অনুসারীদের বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয়। জামাতে চার গ্রামের প্রায় পাঁচ শতাধিক মানুষ অংশ নেন।

পর্যায়ক্রমে ভোলা সদর, দৌলতখান, তজুমদ্দিন, লালমোহন, চরফ্যাশন ও মনপুরা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে পৃথক পৃথক ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। পরে পশু কোরবানি দেয়া হয়।

বোরহানউদ্দিন উপজেলার মুলাইপত্তন গ্রামের শুরেশ্বরের মোয়াজ্জেম মেজনু মিয়া জানান, আদিকাল থেকে মক্কা-মদিনার ওপর নির্ভর করে শুরেশ্বরের দরবার শরীফের অনুসারীরা ঈদ পালন করছে। এবারও আমরা তা-ই করেছি।

Posted by: | Posted on: July 31, 2020

নৌরুটে যাত্রীদের ঢল, নেই নিরাপদ দূরত্ব

করোনা ভীতি থাকলেও স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঘরমুখী মানুষ। কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া ও পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে যাত্রীদের ঢল নেমেছে।

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া ঘাটে ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোটগুলোয় তিলধারণের জায়গা নেই। পদ্মার প্রবল স্রোতের কারণে সীমিত পরিসরে ফেরি চলাচল করায় দু’পাড়েই দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। বিপাকে পড়েছেন হাজার হজার যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিক।

স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে যানবাহনগুলো যাত্রীবোঝাই হয়ে আছে। অনেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই স্পিডবোটে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছেন তারা। এদিকে, পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটেও যাত্রী এবং যানবাহনের চাপ বেড়েছে কয়েক গুণ।

এদিকে ঢাকা ও আশপাশের এলাকা থেকে মানুষ এখন ছুটছেন গ্রামের দিকে। করোনা ভীতি থাকলেও স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে বাস-ট্রেনসহ বিভিন্ন পরিবহনে তারা চলছেন গন্তব্যের দিকে।

বাসে এক সিট ফাঁকা রেখে যাত্রী পরিবহনের জন্য দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করলেও নিরাপদ দূরত্বের বিষয়টি থাকছে উপেক্ষিত। যাত্রী এবং পরিবহন কর্তৃপক্ষের অনেকেই এ ব্যাপারে উদাসীন।

অন্যদিকে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে ট্রেনের ঈদযাত্রা। মোট আসনের অর্ধেক টিকিট বিক্রি হয়েছে এবার। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ যাত্রায় খুশি যাত্রীরা।

বনলতা এক্সপ্রেস, লালমনিরহাট ও কালনি এক্সপ্রেসের সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

প্রতি বছর ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে ৩৬টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করলেও এবার মাত্র ১২টি ট্রেন চলাচল করছে।

Posted by: | Posted on: July 31, 2020

পশু কোরবানির নিয়ম-দোয়া

আরমান হোসেন, হিজলা বরিশাল: রাত পোহালেই মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎসব ঈদুল আজহা। আর ঈদুল আজহা মানেই পশু কোরবানি। আল্লাহর অশেষ নেয়ামতের দিনও এটা। আল্লাহর প্রতি ভালবাসা থেকেই আল্লাহর নামেই পশু কোরবানি করে উৎসর্গ করা হয়। তাই কোরবানির পশু জবাইয়ের নিয়ম কানুন থেকে শুরু করেন বণ্টন সব কিছু সঠিকভাবে হওয়া খুবই জরুরি।  ডেইলি প্রেসওয়াচ পাঠকদের জন্য কোরবানির নিয়ম ও দোয়া উল্লেখ করা হলো- 

নিজের কোরবানির পশু নিজেই জবাই করা মুস্তাহাব। যদি নিজের দ্বারা জবাই সম্ভব না হয় তবে অন্যের দ্বারা জবাই করানো। এক্ষেত্রে জবাইয়ের সময় কোরবানি দাতা সামনে থাকা উত্তম।

কোরবানির পশু জবাইয়ের নিয়ম ও দোয়া তুলে ধরা হলো-

জবাই বা নহরের পদ্ধতি
জবাই করার সময় পশু ক্বিবলামুখী করে শোয়ানো। অতঃপর (بِسْمِ اللهِ اَللهُ اَكْبَر) বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার বলে জবাই করা।

ইচ্ছাকৃতভাবে বিসমিল্লাহ বলা পরিত্যাগ করলে জবাইকৃত পশু হারাম বলে গণ্য হবে। আর যদি ভুলবশত বিসমিল্লাহ ছেড়ে দেয় তবে তা খাওয়া বৈধ।

জবাই করার সময় কণ্ঠনালী, খাদ্যনালী, এবং উভয় পাশের দুটি রগ অর্থাৎ মোট চারটি রগ কাটা জরুরি। কমপক্ষে যদি তিনটি রগ কাটা হয় তবে কোরবানি শুদ্ধ হবে। কিন্তু যদি দু’টি রগ কাটা হয় তবে কোরবানি দুরস্ত হবে না। (হিদায়া)

জবাই করার সময় ছুরি ভালভাবে ধার দিয়ে নেয়া, যাতে জবাইয়ের সময় পশুর অপ্রয়োজনীয় কষ্ট না হয়। যেমন- এক ছুরি দিয়ে জবাই শুরু করে চামড়া কিছু কাটার পর আর না কাটা অতঃপর আবার ছুরি পরিবর্তন করে জবাই করা ইত্যাদি।

কোনো ব্যক্তি জবাই করার সময় জবাইকারীর ছুরি চালানোর জন্য সাহায্য করে, তবে তারও বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার বলা।

কোরবানির পশু জবেহের দোয়া
কোরবানির পশু জবাই করার সময় মুখে (উচ্চ স্বরে) নিয়ত করা জরুরি নয়। অবশ্য মনে মনে এ নিয়ত করা যে, ‘আমি আল্লাহর উদ্দেশ্যে কোরবানি আদায় করছি। তবে মুখে দোয়া পড়া উত্তম।

কোরবানির পশু ক্বিবলার দিকে শোয়ানোর পর এ দোয়া পাঠ করা-

উচ্চারণ- ইন্নি ওয়াঝঝাহতু ওয়াঝহিয়া লিল্লাজি ফাতারাস সামাওয়াতি ওয়াল আরদা হানিফাও ওয়া মা আনা মিনাল মুশরিকিন। ইন্না সালাতি ওয়া নুসুকি ওয়া মাহইয়া ওয়া মামাতি লিল্লাহি রাব্বিল আলামিন। লা শারিকা লাহু ওয়া বি-জালিকা উমিরতু ওয়া আনা মিনাল মুসলিমিন। আল্লাহুম্মা মিনকা ও লাকা।

অতঃপর ‘বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার’ বলে কুরবানির পশু জবাই করা।

কোরবানির পশু জবাই করে এ দোয়া পড়া-

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা তাকাব্বালহু মিন্নি কামা তাকাব্বালতা মিন হাবিবিকা মুহাম্মাদিও ওয়া খালিলিকা ইবরাহিমা আলাইহিমাস সালাতা ওয়াস সালাম।

লক্ষ্যণীয় হলো- যদি কেউ একাকি কোরবানি দেয় এবং নিজে জবাই করে তবে বলবে মিন্নি; আর অন্যের কোরবানির পশু জবাই করার সময় ‘মিন’ বলে যারা কোরবানি আদায় করছে তাদের নাম বলা।

Posted by: | Posted on: July 31, 2020

হবিগঞ্জে বাসের ধাক্কায় প্রাইভেটকারের ৩ যাত্রী নিহত

হবিগঞ্জের বাহুবলে বাসের ধাক্কায় প্রাইভেটকারের ৩ যাত্রী নিহত হয়েছেন।

শুক্রবার (৩১ জুলাই) এই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো তিনজন।

বিস্তারিত আসছে…