Main Menu

‘এখনই আমার সঙ্গে চলেন, আপনাকে খালের পরিস্থিতি দেখাবো’

নগরীর খালগুলো সরেজমিন পরিদর্শন শেষে রাজধানীর জলাবদ্ধতার পেছনে ওয়াসার সীমাহীন উদাসীনতার প্রমাণ পেয়েছেন দুই মেয়র ও স্থানীয় সরকারমন্ত্রী। এমন অবস্থায় দুই সিটিকে খাল রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়ার দাবি উঠেছে। মন্ত্রী বলছেন, নবনির্বাচিত দুই মেয়র প্রস্তুত হলেই দায়িত্ব হস্তান্তর।

পানি নিষ্কাশনের লাইফলাইন খালগুলোর যখন বেহাল দশা, তখন নগরীর জলাবদ্ধতা তো অনিবার্য।

এ নিয়ে কথা হয়েছে অনেক। তবে ভোগান্তি পোহানো এ নগরবাসী এমন দৃশ্য হয়তো দেখেন নি কখনও। আলোচনা আর বক্তৃতা বাগাড়ম্বর পেরিয়ে নগরীর খালগুলোর বাস্তবিক পরিস্থিতি দেখতে সরেজমিনে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

সচিবালয়ে জলাবদ্ধতা নিরসনে টেকনিক্যাল কমিটির সভায় খাল পরিস্কারে ওয়াসার কোন ভূমিকা নেই; এ বিষয়ে দক্ষিণের মেয়র প্রশ্ন ওঠালে বিতণ্ডায় জড়ায় ঢাকা ওয়াসা। বক্তৃতার পক্ষে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন দক্ষিণের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নুর তাপস। এমন অবস্থায় মেয়র, স্থানীয় সারকার মন্ত্রীকে বলেন, আপনি এখনি আমার সঙ্গে চলেন। আপনাকে খালের অবস্থা দেখাবো।’ এরপর খালের বাস্তবিক হাল দেখতে জনগণের মাঠে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী।

রামচন্দ্রপুর, বসিলা ও হাজারিবাগ খালের বিভিন্ন পয়েন্টে ভরাট, দূষণ আর দখলের চিত্র দেখে চক্ষু চড়কগাছ জনপ্রতিনিধিদের। হতাশ মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, এর জন্য ওয়াসাকে শাস্তি পেতে হবে।

তাজুল ইসলাম বলেন, অবশ্যই তাদেরকে এজন্য জবাবদিহি করতে হবে এবং তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দুই মেয়র আশা প্রকাশ করেন, সরেজমিন পরিদর্শনের পর দ্রুত উদ্যোগী হাতে পারবেন মন্ত্রী।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, এই দায়িত্বটা দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা ওয়াসাকে দেয়া ছিলো। কিন্তু আপনারা লক্ষ্য করেছেন যে, ঢাকা ওয়াসা সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হয়েছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের অধীনে খালগুলোকে দিয়ে দিন। আমরা কথা দিতে পারি, এই খাল আমরা পুনরুদ্ধার করবো এবং ড্রেন থেকে খাল, খাল থেকে নদীতে আমরা সংযোগ স্থাপন করবো।

দক্ষিণের পর উত্তরেরও বেশকিছু খাল পরিদর্শন করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী।






Related News