Sunday, July 19th, 2020

now browsing by day

 
Posted by: | Posted on: July 19, 2020

শাহেদ নামা ———————-নজরুল ইসলাম

Posted by: | Posted on: July 19, 2020

গরুর মাংস কতটুকু খাওয়া নিরাপদ?

আসছে কোরবানির ঈদ। এ সময় রেড মিট খাওয়া পড়ে একটু বেশিই। গরুর মাংসে যেমন আছে উপকারিতা, তেমনি মাত্রাতিরিক্ত খেলে তা স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণও কিন্তু হতে পারে। নিজেকে সুস্থ রাখতে গরুর মাংস কতটুকু খাবেন, কীভাবে খাবেন, জেনে নিন সেটাই।

গরুর মাংস রান্না করুন সবজি দিয়ে

দৈনিক গরুর মাংস খাওয়ার নিরাপদ মাত্রা হলো ৩ আউন্স বা ৮৫ গ্রাম। ৩ আউন্স মাংসে আছে ২০০ কিলো ক্যালোরি যা দৈনিক মাত্র ১০ ক্যালোরির জোগান দেবে।

এই ৩ আউন্স মাংসে কোলেস্টেরল থাকে ৫৩ মিলিগ্রাম। একজন সুস্থ ব্যক্তির দৈনিক নিরাপদ মাত্রা হলো ৩০০ মিলিগ্রাম এবং হার্টের রোগীদের জন্য ২০০ মিলিগ্রাম। তাই তিন আউন্স গরুর মাংস খাওয়া নিরাপদ।
প্রোটিন
গরুর মাংসে প্রচুর প্রোটিন পাওয়া যায়। এছাড়াও হাড়, কলিজা, মগজ ইত্যাদি থেকেও প্রোটিন পাওয়া যায়। প্রতি ১০০ গ্রাম গরুর মাংসে ২২.৬ গ্রাম প্রোটিন পাওয়া যায়।

ফ্যাট
ছোট গরুর মাংসে ফ্যাটের পরিমাণ কম থাকে। এই মাংসে অনেক সম্পৃক্ত ফ্যাট রয়েছে। প্রতি ১০০ গ্রাম মাংসে ফ্যাট রয়েছে ২.৬ গ্রাম।

খনিজ পদার্থ
প্রচুর পরিমাণে জিংক, আয়রন, সোডিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম ও কপার রয়েছে গরুর মাংসে। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় এসব খনিজ পদার্থ। এগুলো আমাদের শরীরের রক্ষণাবেক্ষণ ও রোগ প্রতিরোধ করে। ৩ আউন্স মাংসে ৩৯ শতাংশ জিংক পাওয়া যায়।

ভিটামিন
গরুর মাংস ভিটামিন বি এর ভালো উৎস। ভিটামিন বি ১২, বি ৬, রিবোফ্লাবিন ইত্যাদি পাওয়া যায় গরুর মাংসে, যা মানসিক স্বাস্থ্যরক্ষায় সাহায্য করে। আমাদের দেহে ২.৪ মিলিগ্রাম ভিটামিন বি১২ এর প্রয়োজন প্রতিদিন। এর ৩৭ শতাংশ চাহিদা পূরণ করে গরুর মাংস।

খাবার প্রক্রিয়া
গরুর মাংস খেয়েও আপনি ভালো থাকতে পারবেন যদি নিয়ম মেনে রান্না করেন। রান্নায় তেলের ব্যবহার কমিয়ে রান্না করুন। ভুনা করে বেশি মসলাযুক্ত রান্না করবেন না। গরুর মাংসের চর্বির পরিমাণ কমাতে বাড়তি চর্বি ফেলে দিয়ে রান্না করা যেতে পারে। কারণ চর্বির পরিমাণ বেশি হলে ক্ষতি শরীরের জন্যই। তবে গরুর মাংস কতটুকু ক্ষতিকর, সেটা নির্ভর করবে আপনি কী পরিমাণে খাচ্ছেন তার উপর। আবার সবজি দিয়ে রান্না করে খাওয়া যেতে পারে। তবে সপ্তাহে দুই থেকে একবার খাওয়াই ভালো। এটি ক্যানসার প্রতিরোধ ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে বলে গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে। তাই গরুর মাংস খাবেন, কিন্তু পরিমাণ সীমিত।
ঝুঁকি

  • মাংসে আঁশের পরিমাণ কম থাকায় কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। কোলন ক্যানসারে হওয়ার আশংকা থাকে এতে।
  • অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়বে।

লেখক: পুষ্টিবিদ
তথ্য: ইউএস ডিপার্টমেন্ট অব এগ্রিকালচার রিসার্চ সার্ভিস

Posted by: | Posted on: July 19, 2020

ভোট চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন আমিরাতের রাজন খলিফার

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন)-এর প্রেসিডেন্ট পদে ভোট চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেছিলেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজন খলিফা আল মোবারক। প্রধানমন্ত্রীও তাকে এ ফোরামে ভোট দেওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, রবিবার (১৯ জুলাই) বিকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোন করে ভোট চান আল মোবারক। এ সময় তিনি আইইউসিএন-এর প্রেসিডেন্ট পদে বাংলাদেশের সমর্থন কামনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন ২০২১ সালের ১৩-১৪ জানুয়ারি ফ্রান্সে অনুষ্ঠিতব্য ওয়ার্ল্ড কনজারভেশন কংগ্রেসে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের এই প্রার্থীর পক্ষে সমর্থন ব্যক্ত করেন।

Posted by: | Posted on: July 19, 2020

পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালনে কর্মকর্তাদের প্রতি আইজিপির আহ্বান

আইজিপি বেনজীর আহমেদ

গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করার জন্য কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ। তিনি বলেন, ‘বিগত দুই বছর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের আওতাধীন দফতরসমূহের মধ্যে পুলিশ প্রথম স্থান অর্জন করেছে। ভবিষ্যতেও সাফল্যের এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।’

রবিবার (১৯ জুলাই) দুপুরে পুলিশের রেঞ্জ ও বিশেষায়িত ৩৬টি ইউনিটের প্রধানদের সঙ্গে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ এই আহ্বান জানান।

আইজিপি বলেন, ‘বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি, জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশলগুলো আধুনিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার অন্যতম অনুষঙ্গ। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এ ধরনের কর্মসূচি চালু করেছেন প্রধানমন্ত্রী।’

অনুষ্ঠানে স্পেশাল ব্রাঞ্চ (এসবি), ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ (আইপি), ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি), টেলিকমিউনিকেশন অ্যান্ড ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট (টিঅ্যান্ডআইএম), এপিবিএন, পুলিশ স্টাফ কলেজ (পিএসসি), র‍্যাব, সিআইডি, অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ), নৌ-পুলিশ, পিবিআই, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল (সিপিএইচ), ট্রাফিক ড্রাইভিং স্কুল (টিডিএস), ঢাকা রেঞ্জ, টুরিস্ট পুলিশ ইউনিটের সঙ্গে এপিএ স্বাক্ষরিত হয়।

পুলিশ সদর দফতরের জনসংযোগ বিভাগের এআইজি সোহেল রানা জানান, বর্তমানে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর পুলিশের থানা পর্যায় পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। থানা জেলা পুলিশের সঙ্গে, জেলা পুলিশ রেঞ্জ পুলিশের সঙ্গে এই চুক্তি স্বাক্ষর করে। রেঞ্জ ও বিশেষায়িত ইউনিটসমূহ পুলিশ সদর দফতরের সঙ্গে এপিএ চুক্তি স্বাক্ষর করে।

পুলিশ এপিএ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মাধ্যমে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৯৫ ভাগ এবং ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৯৭ ভাগ নম্বর পেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের দফতরসমূহের মধ্যে পর পর দুইবার প্রথম স্থান অধিকার করে।

উল্লেখ্য, সরকারি কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা ও দায়বদ্ধতা বৃদ্ধি, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারি কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির আওতায় বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি প্রবর্তন করা হয়।

Posted by: | Posted on: July 19, 2020

চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীকে সেনানিবাস এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা

চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীকে সেনানিবাস এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা

লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী

লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীকে সব সেনানিবাস এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। রবিবার (১৯ জুলাই) আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

আইএসপিআর জানায়, সম্প্রতি বিএ-২০০৪ লেফটেন্যান্ট জেনারেল চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী (অবসরপ্রাপ্ত) বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে সেনানিবাসে প্রবেশ এবং সেনাবাহিনী সম্পর্কে মিথ্যাচার করেন, যা কর্তৃপক্ষের নজরে আসে।  উল্লেখ্য, তিনি লেফটেন্যান্ট জেনারেল পদে পদোন্নতি পাওয়ার পর এনডিসির কমান্ড্যান্ট থাকাবস্থায় একাধিক নারীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। তিনি এনডিসিতে পরিচালিত বিভিন্ন কোর্সের সঙ্গে বিদেশে ভ্রমণকালেও অনেক মেয়েকে নিয়ে চলাফেরা করেন এবং বিভিন্ন মাধ্যমে তার এই অশোভনীয় আচরণ এবং মেলামেশার ছবি গোচরীভূত হলে কর্তৃপক্ষ বিব্রত হয় এবং তাকে বিভিন্নভাবে উপদেশ দেওয়া হয়।

আইএসপিআর আরও জানায়, তিনি এলপিআরে এ থাকাকালীন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া ২০১৮ সালের ১৬ আগস্ট প্রথম স্ত্রীকে তালাক প্রদান করেন এবং সেনা আইন বর্হিভূতভাবে মেসকিট (সামরিক পোশাক) পরে ২১ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ব্যতীত দ্বিতীয় বিবাহ করেন।

আইএসপিআর আরও জানায়, লেফটেন্যান্ট জেনারেল চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দীর (অব.) এ ধরনের আচরণ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের জন্য অস্বস্তিকর ও বিব্রতকর। এ ধরনের ঘটনা সেনাবাহিনীতে কর্মরত অফিসার এবং অন্যান্য পদবীর মধ্যে নেতিবাচক উদাহরণ হিসেবে কাজ করে ও বিরূপ প্রভাব ফেলে। সামগ্রিক বিবেচনায়, গত ১০ এপ্রিল ২০১৯ এই কর্মকর্তাকে (চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী)সেনানিবাস ও সেনানিবাস আওতাভুক্ত এলাকায় অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হয়। উল্লেখ্য, সেনা কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ‘অবাঞ্চিত ব্যক্তি’র জন্য সেনানিবাস ও সেনানিবাসের আওতাভুক্ত সব স্থাপনা এবং সেনানিবাসের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা যেমন— সিএমএইচ এ চিকিৎসা সেবা, অফিসার্স ক্লাব, সিএসডি শপ ইত্যাদিতে প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ করা হয়েছে।