Main Menu

১০১ বছরে না ফেরার দেশে অমলা শঙ্কর

চলে গেলেন কিংবদন্তি নৃত্যশিল্পী অমলা শঙ্কর। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ১০১ বছর।

শুক্রবার (২৪ জুলাই) সকালে ঘুমের মধ্যেই তার মৃত্যু হয় বলে টুইট করে জানান তার নাতনি শ্রীনন্দা শঙ্কর।

টুইটে তিনি লেখেন, ১০১ বছর বয়সে আজ আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন ঠাম্মা। গতমাসেই ওর জন্মদিন পালন করেছিলাম আমরা। খুব অস্থির বোধ করছি কারণ মুম্বাই থেকে কলকাতা যাওয়ার বিমান চলছে না।

জানা গেছে, বার্ধক্যজনিত কারণে তার এই মৃত্যু। ২৭ জুন কলকাতায় তার মেয়ে মমতা শংকরের বাড়িতে ১০১ বছরের জন্মদিনের অনুষ্ঠান উদযাপিত হয়।

তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোক জানিয়েছেন শিল্পজগতের বিশিষ্টজনরাও।

দুই বাংলার জনপ্রিয় সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় অমলা শঙ্করের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, তার এই মৃত্যু এক শতাব্দীর ইতিহাস।

একইভাবে শোক জানিয়েছেন প্রখ্যাত অভিনেত্রী ও নির্মাতা অপর্ণা সেনও। তার ভাষায়, মাসিমাকে দেখে আমরা সবাই উজ্জিবিত হতাম। ৯০ বছরের বয়সেও তিনি আমাকে বলেছিলেন, অর্পণা একটা ছবি কর, তোর ছবিতে আমি শেষবারের মতো নৃত্য করবো।

১৯১৯ সালের ২৭ জুন জন্ম অমলা শঙ্করের। ছোট বয়স থেকেই প্রতিভার বিচ্ছুরণ ঘটে তাঁর। ১৯৩১ সালে মাত্র ১১ বছর বয়সে প্যারিসের ইন্টারন্যাশনাল কলোনিয়াল এগজিবিশনে অংশগ্রহণ করেন তিনি। সেখানেই শঙ্কর পরিবার তথা স্বামী ও গুরু উদয় শঙ্করের সঙ্গে আলাপ হয় অমলা শঙ্করের। তারপর উদয় শঙ্করের কাছে তালিম নিতে শুরু করেন তিনি। উদয় শঙ্করের ডান্স গ্রুপের সঙ্গে দেশ-বিদেশে ঘুরে বেড়াতে থাকেন।

তার কয়েক বছরের মধ্যেই, মাত্র ১৯ বছর বয়সে উদয় শঙ্করের সঙ্গে সাতপাকে বাঁধা পড়েন অমলা। ১৯৪২ সালে তাঁদের বিয়ে হয়।

একাধিক সাক্ষাৎকারে অমলা জানান, একদিন রাতে হঠাৎই তাঁর ঘরে এসে বিয়ের প্রস্তাব দেন উদয় শঙ্কর। ঘটনার আকস্মিকতায় কেঁদে ফেলেছিলেন তিনি।

বিয়ের পর আরও বেশি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে উদয়-অমলা জুটি। বিশ্বের বিখ্যাত নৃত্যশিল্পী জুটিদের মধ্যে অন্যতম হয়ে ওঠেন তাঁরা।

উদয়-অমলার দুই সন্তান, প্রয়াত সুরকার আনন্দ এবং মমতা শঙ্কর। মেয়ে এবং ছেলের স্ত্রী তনুশ্রী শঙ্করের সঙ্গে মিলে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত শঙ্কর ঘরানাকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন অমলা শঙ্কর।






Related News