Main Menu

নারায়ণগঞ্জ ভূইগড়ে রূপায়ন টাউনে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

নুসরাত আহমেদঃ


নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা ভূইগড় রূপায়ন গ্রুপের টাউন আবাসিক এলাকায় কতৃপক্ষের পালিত সন্ত্রাসীরা ফ্ল্যাট মালিকদের কাছে চাঁদা, ভুতুড়ে সার্ভিস চার্জ, পানির বিল, বিদ্যুৎ বিল, ডিস লাইনের বিল, ইন্টারনেট বিল, ময়লার বিল, সিকিউরিটি বিল, আনসার বিলসহ নানা অজুহাতে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও বকেয়া বিল দাবী করে ফ্ল্যাট মালিকদের কাছে ১ কোটি টাকা চাঁদা আদায়ের চেষ্টা চালানো হয়।


চাঁদা না দেয়ায় ও ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিবাদ করায় ৫০/৬০ জনের একটি সন্ত্রাসী বাহিনী বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ফ্ল্যাট মালিকদের উপর হামলা চালিয়ে তাদের মালিকানা সম্পত্তি ছেড়ে যেতে নির্দেশ দেয়। এসময় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিরিক্ষা বিভাগের একজন উপ পরিচালকসহ মোট ৫ জন গুরুতর আহত হয়ে বর্তমানে তারা খানপুর হাসপাতালে ভর্তি অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন। হামলার পর বৃহস্পতিবার রাতে ফতুল্লা মডেল থানায় আবু সাঈদ পাটোয়ারী ও আশরাফ সিদ্দিকী বাদী হয়ে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে ৫০/৬০ জনের বিরুদ্ধে দুটি এ ঘটনায় শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) কয়েকশ ফ্ল্যাট মালিকদের স্ত্রী, সন্তান, পরিবারের সবাই মানববন্ধন, বিক্ষোভ সমাবেশের মধ্যদিয়ে রূপায়ন টাউনের ভিতরে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবী জানায়। এছাড়াও তারা কাউকে কোন চাঁদা দেবে না বলেও ঘোষণা দেন।কোন সন্ত্রাসীর আস্তানা তাদের মালিকানাধীন রূপায়ন টাউনে স্হান দেয়া চলবে না বলে দাবী জানায়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ পরিচালক আব্দুস সালাম আজাদের স্ত্রী ও মেয়ে বলেন, নাজিম উদ্দিনের সন্ত্রাসীরা আমার বাবাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছে।

আমার বাবা এখন হাসপাতালে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি বিচার চাই। আমাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করুন। সন্ত্রাসীদের বিচার করুন। আমরা শান্তিতে থাকতে চাই। পড়ালেখা করতে চাই। মন্ত্রণালয়ের উপ সচিব সারোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের আত্মীয় স্বজনরা এলে বহুবার নিরাপত্তা কর্মী ফোন দিয়ে নিশ্চিত করে ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়। কিন্তু সন্ত্রাসীদের সঙ্গবদ্ধ দল আনসার ও সিকিউরিটি কর্মী থাকা স্বত্ত্বেও বিনা বাধায় কি করে প্রবেশ করে আমাদের ফ্ল্যাটে এসে হামলা চালায়। এরা রূপায়ন কতৃপক্ষের পালিত সন্ত্রাসী। তাদের দিয়ে বিভিন্ন সময়ে আমাদের প্রতিবাদী কন্ঠ রোধ করা হয়।

সিসি টিভি ফুটেজ পরীক্ষা করে প্রতিটি সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবী জানায়। এসময় বিক্ষোভে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সারোয়ার হোসেন, হারুনুর রশীদ, খাজা আহমেদ, শামীম চৌধুরী, বাকির ভূঁইয়া, নুর আলম, এমএ ছালাম, নুর ইসলাম প্রমুখ। এ বিষয়ে জানতে চাইলে রূপায়নের মহা ব্যবস্থাপক সারোয়ার হোসেন বলেন, আমার জানা মতে রূপায়ন সন্ত্রাসী পালন করে না। চাঁদাও দাবী করে না। তবে আমার জানার বাইরে কেউ করে থাকলে তা আমি জানি না। নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিনের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি রিসিভ করেন নি।






Related News