Monday, April 29th, 2019

now browsing by day

 
Posted by: | Posted on: April 29, 2019

ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজে বিশেষ পরীক্ষা

অনলাইন ডেস্কঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত সাতটি কলেজের শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি লাঘব ও সেশনজট নিরসনে বিশেষ পরীক্ষা নেয়া হবে। ঢাবি অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের দাবি পর্যালোচনা, বিশ^বিদ্যালয়ের কাজের বিকেন্দ্রিকরণ, শিক্ষার্থীদের সেশনজট নিরসন ও সার্বিক শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে ২৮ এপ্রিল এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।সোমবার ঢাবি জনসংযোগ দফতরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রমের সমস্যা স্ব-স্ব কলেজের অধ্যক্ষের মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে নিস্পত্তি হবে। তারা শিক্ষার্থীদের যে কোন আবেদনের বিষয়ে তথ্য উপাত্ত যাচাই করে ২৪ ঘন্টার মধ্যে প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত ডেস্কে (ডেডিকেটেড ডেস্ক) প্রেরণ করবেন। পরীক্ষা/ ভর্তি/ ফলাফল/ রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত যে কোন তথ্য শিক্ষার্থীরা স্ব-স্ব কলেজর অধ্যক্ষ/কলেজ অফিস থেকে জানতে পারবে। এক্ষেত্রে প্রয়োজনে অধ্যক্ষ/কলেজ অফিস বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত কলেজের ডেডিকেটেড ডেস্কের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডেপুটি রেজিস্ট্রারের সাথে তাৎক্ষণিক যোগাযোগ করবেন। কোন শিক্ষার্থীর কোন তথ্যের জন্য দরখাস্ত দিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন অফিসে আসতে হবে না।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে সব শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে অধিভুক্ত হয়েছে তাদের ভোগান্তি লাঘব ও সেশনজট নিরসনকল্পে প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে বিশেষ পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে। নম্বর স্থগিত ও সর্বোচ্চ দুই বিষয়ে অকৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থীরা শর্তসাপেক্ষে পরবর্তী শ্রেণিতে (প্রিলিমিনারি/ মাস্টার্স শেষপর্ব) ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে তবে সংশ্লিষ্ট শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহনের পূর্বে পূর্ববর্তী শ্রেণির অকৃতকার্য বিষয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। যে সব শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে তাদেরও বিশেষ বিবেচনায় সংশ্লিষ্ট পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হবে। এছাড়া পরীক্ষার ফলাফল দ্রুত প্রকাশ,নির্ধারিত সময়ের মধ্যে উত্তরপত্র মূল্যায়ন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের নিকট জমা, একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রণয়নসহ বিভিন্ন কাজে গতি আনতে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

এছাড়া মৌখিক পরীক্ষা দ্রুততম সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে প্রতি কলেজে ভাইভা-বোর্ড গঠন করা হবে। একইভাবে ব্যবহারিক পরীক্ষাও বিকেন্দ্রীকরণ নীতিতে নেয়া হবে। আগামী এক বছরের মধ্যে পরীক্ষক বা বিভাগীয় প্রধান সকল পরীক্ষার নম্বর অনলাইনে বিশ^বিদ্যালয়ে প্রেরণ করবেন। পরে উত্তরপত্র মূল্যায়নের ক্ষেত্রে ওএমআর পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে।

সভায় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন ও অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম, কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবু মো. দেলোয়ার হোসেন, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আব্দুল আজিজ, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, সাত কলেজের অধ্যক্ষবৃন্দ এবং বিশ^বিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. বাহালুল হক চৌধুরী সভায় উপস্থিত ছিলেন।-ইত্তেফাক

Posted by: | Posted on: April 29, 2019

ছয় বছর পর প্লে-অফে দিল্লি : কলকাতাকে জয়ে ফেরালেন রাসেল

মাহাবুবুর রহমান চঞ্চলঃ


 ছয় বছর পর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) প্লে-অফে উঠলো দিল্লি। গতকাল আইপিএলের ৪৬তম ও নিজেদের ১২তম ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালস ১৬ রানে হারিয়েছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুকে। এই জয়ে প্লে-অফ নিশ্চিত করে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠলো দিল্লি। ম্যাচ হেরে প্লে-অফে খেলার আশা শেষ হয়ে গেল ব্যাঙ্গালুরুর। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের আন্দ্রে রাসেলের অলরাউন্ড নৈপুন্যে কলকাতা নাইট রাইডার্স ৩৪ রানে হারিয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে। টানা ছয় ম্যাচ হারের পর জয়ের দেখা পেল কলকাতা। ফলে ১২ খেলায় ১০ পয়েন্ট নিয়ে প্লে-অফে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখলো কলকাতা। ১২ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে প্লে-অফ নিশ্চিতের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে মুম্বাই।


নিজেদর মাঠে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামে দিল্লি। ওপেনার শিখর ধাওয়ান ও অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ারের জোড়া হাফ-সেঞ্চুরিতে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৮৭ রান করে দিল্লি। ধাওয়ান ৩৭ বলে ৫০ ও আইয়ার ৩৭ বলে ৫২ রান করেন। এছাড়া শেষের দিকে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের শেরফেন রাদারফোর্ড (ঝযবৎভধহব জঁঃযবৎভড়ৎফ) ১৩ বলে অপরাজিত ২৮ ও অক্ষর প্যাটেল ৯ বলে অপরাজিত ১৬ রান করেন।
জবাবে ব্যাটসম্যানরা বড় ইনিংস খেলতে ব্যর্থ হওয়ায় ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৭১ রানের বেশি করতে পারেনি ব্যাঙ্গালুরু। ওপেনার পার্থিব প্যাটেল ২০ বলে ৩৯ ও অস্ট্রেলিয়ার মার্কাস স্টোয়িনিস ২৪ বলে অপরাজিত ৩২ রান করেন। ম্যাচ সেরা হয়েছেন দিল্লির ধাওয়ান।
দিনের পরের ম্যাচে কলকাতার মাঠে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেয় মুম্বাই। ব্যাট হাতে উড়ন্ত সূচনা করে কলকাতা। দুই ওপেনার সুবমান গিল ও অস্ট্রেলিয়ার ক্রিস লিন ৫৭ বলে ৯৬ রানের যোগ করেন। গিল ৪৫ বলে ৭৬ ও লিন ২৯ বলে ৫৪ রান করেন।
এরপর রাসেল তিন নম্বরে ব্যাট হাতে নেমে বিধ্বংসী রুপ নেন। ৬টি চার ও ৮টি ছক্কায় ৪০ বলে অপরাজিত ৮০ রান করেন রাসেল। এতে ২০ ওভারে ২ উইকেটে ২৩২ রানের বড় সংগ্রহ পায় কলকাতা।
জবাবে টপ-অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ৫৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ম্যাচের লড়াই থেকে ছিটকে পড়ে মুম্বাই। তবে এ অবস্থাতেও হাল ছাড়েননি হার্ডিক পান্ডিয়া। ছয় নম্বরে ব্যাট হাতে লড়াকু ইনিংস খেলেন তিনি। ৬টি চার ও ৯টি ছক্কায় ৩৪ বলে ৯১ রান করেন পান্ডিয়া। কিন্তু তার এই ইনিংসটি শেষ পর্যন্ত বৃথাই যায়। কারন ৭ উইকেটে ১৯৮ রানে নিজেদের ইনিংস শেষ করে মুম্বাই। ম্যাচ সেরা হন কলকাতার রাসেল।-খবর বাসস

Posted by: | Posted on: April 29, 2019

ইংল্যান্ড চাপমুক্ত থাকতে পারবে বিশ্বাস মরগানের

অনলাইন ডেস্ক: দেশের মাটিতে আসন্ন ওয়ানডে বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড চাপমুক্ত থাকতে পারবে বলে বিশ্বাস করেন দলের অধিনায়ক ইয়োইন মরগান। আগামী ৩০ মে থেকে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলসে শুরু হতে যাচ্ছে ওয়ানডের সবচেয়ে মর্যাদাকর আসর বিশ্বকাপ। নিজ মাটিতে বিশ্বকাপ হওয়ায়, স্বাগতিক হিসেবে চাপে থাকতে হবে ইংলিশদের। কিন্তু আসন্ন বিশ্বকাপে দল চাপমুক্ত থেকে ভালো ক্রিকেট খেলবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন মরগান। তিনি বলেন, ‘দেশের মাটিতে বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড চাপমুক্ত থাকবে এবং এবার বিশ্বকাপ থেকে সেরা সাফল্যই পাবে দল।’তিনবার ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠলেও শিরোপা জয় করা হয়নি ইংল্যান্ডের। ১৯৭৯, ১৯৮৭ ও ১৯৯২ সালের আসরে ফাইনাল খেলে ইংলিশরা। তিন ফাইনালে যথাক্রমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তানের কাছে হেরে শিরোপায় স্বাদ নিতে ব্যর্থ হয় ইংল্যান্ড। তবে এবার সেই বন্ধ্যাত্ব ঘোচাতে চায় ইংলিশরা। দেশের মাটিতে খেলার সুবিধা নিয়ে প্রথমবারের মত বিশ্বকাপের শিরোপা ছুয়ে দেখতে মরিয়া তারা। আর গেল তিন বছর ধরে ওয়ানডেতে দুর্দান্ত পারফরমেন্স ইংল্যান্ডকে শিরোপা জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছে।

কিন্তু স্বাগতিক হওয়ায় ইংল্যান্ডের জন্য আসন্ন বিশ্বকাপটি অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং। তবে এই চ্যালেঞ্জ নিতে দল প্রস্তুত বলে মনে করেন ইংলিশ অধিনায়ক মরগান। আসন্ন বিশ্বকাপে দল চাপমুক্তই থাকবে বলে জানান মরগান, ‘দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলার চাপ অবশ্যই থাকবে। তবে আমরা সেই চাপ নিতে প্রস্তুত। গেল তিন বছরে আমরা অনেক বেশি পরিপক্ব হয়েছি। তাই চাপ মুক্ত হয়ে দল ভালো খেলতে পারবে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।’

২০১৭ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি অনুষ্ঠিত হয়েছিলো ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলসে। স্বাগতিক হয়ে ফেভারিটের তকমা গায়ে ছিলো ইংলিশদের। কিন্তু কার্ডিফে অনুষ্ঠিত সেমিফাইনালে পাকিস্তানের কাছে হেরে যায় মরগানের দল। এবারও ফেভারিটের তকমা ইংল্যান্ডের আছে। তবে এসব নিয়ে না ভেবে বিশ্বকাপের জন্য ভালোভাবে প্রস্তুতি নিতে চান মরগান। তিনি বলেন, ‘চ্যাম্পিয়নস ট্রফি থেকে প্রায় সব সিরিজেই আমাদের গায়ে ফেভারিটের তকমা ছিলো। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে আমরা সেমিফাইনাল পর্যন্ত গিয়েছিলাম। এরপর প্রত্যেক সিরিজে ফেভারিট তকমা নিয়ে সাফল্য পাবার চেষ্টা করেছি। তবে এখন ছেলেরা ফেভারিট বা আমরাই সেরা এসব নিয়ে ভাবে না। ফেভারিট তকমার সাথে ছেলেরা অভ্যস্ত হয়ে গেছে। তবে এখন আমাদের জন্য সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো বিশ্বকাপের জন্য ভালোভাবে নিজেদের প্রস্তুত করা এবং ভাল পারফরমেন্স করা।’

২০১৫ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় ইংল্যান্ড। এরপর থেকেই ওয়ানডেতে অন্য এক দলে পরিনত হয় মরগানের নেতৃত্বাধীন ইংল্যান্ড। ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলে বর্তমানে ওয়ানডে র্যাংকিংয়ে এক নম্বর দল ইংল্যান্ড। তাই র্যাংকিং-এর সেরা দল হয়েই বিশ্বকাপে খেলতে নামবে মরগান-স্টোকস-বাটলাররা। গেল কয়েক বছরে নিজেদের খেলার কৌশল পাল্টে সাফল্য পাওয়াতে খুশী মরগান। তিনি বলেন, ‘গত কয়েক বছরে আমাদের খেলার কৌশল বিকশিত হয়েছে। আমার অনেক পরিবর্তন করেছি। খুব আগ্রাসী খেলতাম আমরা। সেখান থেকে সরে এসেছি। এখন ইতিবাচক, পরিকল্পনামাফিক ও প্রাণবন্ত ক্রিকেট খেলি আমরা। আমি খুবই রোমাঞ্চিত।’

৩০ মে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে মিশন শুরু করবে ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপের আগে দেশের মাটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে একটি টি-২০ ও পাঁচটি ওয়ানডে খেলবে ইংলিশরা।

ইত্তেফাক

Posted by: | Posted on: April 29, 2019

সিলেট বিভাগে বৃষ্টি হতে পারে

অনলাইন ডেস্ক: সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গা ছাড়া অন্যান্য অঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে। সোমবার সকালে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।এতে বলা হয়, সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে এবং দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্যমতে টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ,ঢাকা ও রাঙামাটি অঞ্চলসহ রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। পরবর্তী ৭২ ঘন্টায় আবহাওয়ার উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন নেই। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীতে সর্বোচ্চ ৩৯.৯ ডিগ্রি তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

এছাড়া আবহাওয়ার বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় “ফণি” আরও উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আজ সকাল ৬ টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১৬২০ কিঃ মিঃ দক্ষিণে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১৫৪৫ কিঃ মিঃ দক্ষিণে,মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১৫৮০ কিঃ মিঃ দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১৫৫০ কিঃ মিঃ দক্ষিণে অবস্থান করছিল।এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিঃ মিঃ এর মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিঃ মিঃ যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিঃ মিঃ পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর বিক্ষুব্ধ রয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।-ইত্তেফাক

Posted by: | Posted on: April 29, 2019

ইন্দোনেশিয়ায় ভোট গুনতে গিয়ে ২৭২ জনের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক: ইন্দোনেশিয়ায় ভোট গুনতে গিয়ে অতিরিক্ত কাজের চাপে ২৭২ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মৃত্যু হয়েছে। সেদেশের জাতীয় নির্বাচন কমিশন এর মুখপাত্র আরিফ প্রিয় সুশান্ত এ তথ্য জানিয়েছেন। খবর বিবিসির।গেল ১৭ এপ্রিল ইন্দোনেশিয়ায় একইদিনে বিশ্বের সর্ববৃহৎ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ভোটারের সংখ্যা ছিলো ১৯ কোটির উপরে। তারা প্রথমবারের মতো একইসঙ্গে প্রেসিডেন্ট এবং কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় আইনসভা নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

এই নির্বাচনে ইন্দোনেশিয়ায় সব মিলিয়ে স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় আইনসভার মোট ২০ হাজার আসনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে প্রার্থীতা করেছেন অন্তত দুই

লাখ ৪৫ হাজার ব্যক্তি। ৮ লাখেরও বেশি কেন্দ্রে ১৯ কোটি ৩০ লাখ নিবন্ধিত ভোটারের প্রায় ৮০ ভাগ ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচনে ৭০ লক্ষ নির্বাচনকর্মী নিয়োজিত ছিলেন।

এত বেশি সংখ্যক ভোটার ও প্রার্থীদের ভোট দ্রুত গণনার চাপ ছিলো নির্বাচনের সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের। ফলে অতিরিক্ত কাজের চাপে স্ট্রোক, হৃদযন্ত্র বন্ধ হওয়াসহ বিভিন্ন রোগে ২৭২ জন মারা যান।

আরিফ প্রিয় সুশান্ত বলেন, ‘মৃত নির্বাচন কর্মীদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এছাড়াও অসুস্থ হয়ে পড়া কর্মীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’

নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে জীবন হারানো প্রত্যেক কর্মীর পরিবারকে ৩ কোটি ৬০ লাখ ইন্দোনেশীয় রুপিয়া করে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে বলেও জানান তিনি।

অসংখ্য দ্বীপের সমন্বয়ে গঠিত ইন্দোনেশিয়ার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তের দূরত্ব ৫ হাজার কিলোমিটারেরও বেশি। সেখানে একদিনে এই বিরাট ভোটের আয়োজনকে বিশ্বের সবচেয়ে কঠিন নির্বাচন বলে আখ্যা দেয় আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।-ইত্তেফাক