Main Menu

ফাইজারের তৈরি করোনা টিকার অনুমোদন দিলো ব্রিটেন

IMG

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক: বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ফাইজার/বায়োএনটেক-এর করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিয়েছে ব্রিটেন। ব্রিটিশ নিয়ন্ত্রক সংস্থা এমএইচআরএ জানিয়েছে, কোভিড-১৯ সংক্রান্ত অসুস্থতার ক্ষেত্রে ৯৫ শতাংশ সুরক্ষা প্রদানকারী এই টিকা চালু করার ক্ষেত্রে নিরাপদ।

অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত গোষ্ঠীগুলির লোকজনদের আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই টিকা প্রদানের কাজ শুরু হতে পারে। ব্রিটেন ইতোমধ্যে ৪ কোটি ডোজের চাহিদা দিয়েছে, যা দু’বার করে ২ কোটি মানুষকে টিকা দানের ক্ষেত্রে পর্যাপ্ত। এর মধ্যে এক কোটি খুব শিগগিরই হাতে আসবে। কাজেই কিছুদিনের মধ্যেই ব্রিটেনে প্রথম দফার টিকাদানের জন্য তা চলে আসবে।

ধারণা থেকে বাস্তব রূপায়নের ক্ষেত্রে এই ভ্যাকসিনই দ্রুততম। ভ্যাকসিন তৈরির ক্ষেত্রে যে সব প্রক্রিয়া রয়েছে, তা পূর্ণ করতে সাধারণ ক্ষেত্রে প্রায় এক দশকের মতো সময় লাগে। এক্ষেত্রে সেই সব প্রক্রিয়া মাত্র ১০ মাসের মধ্যেই সম্পূর্ণ করা হয়েছে।

ভ্যাকসিন প্রদানের কাজ শুরু হলেও মানুষকে সতর্ক থাকতে হবে এবং সংক্রমণের প্রসার এড়াতে করোনাবিধি মেনে চলতে হবে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এর অর্থ সামাজিক দূরত্ব, মাস্ক ব্যবহার ও সাবান পানি দিয়ে বারবার হাত ধোয়া বা স্যানিটাইজার ব্যবহারের মতো বিধি কঠোরভাবেই মেনে চলা দরকার।

সেই সঙ্গে আক্রান্ত বলে যাঁদের সন্দেহ করা হচ্ছে, তাঁদের টেস্ট করা ও পজিটিভ হলে আইসোলেশনে থাকার মতো বিধিতে কোনভাবেই রাশ আলগা করা যাবে না।

সারা বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৬.৪ কোটির বেশি। ব্রিটেনে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬ লাখের বেশি। দেশটিতে সাধারণ মানুষের ব্যবহারের জন্য ফাইজার/বায়োএনটেক-এর করোনা ভ্যাকসিনের অনুমোদন দেয়া হলো। এর ফলে খুব শিগগিরই সাধারণ মানুষকে করোনা ভ্যাকসিন দেয়ার কাজ শুরু হয়ে যাবে।

এই ভ্যাকসিনকে মাইনাস ৭০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় রাখতে হবে এবং ড্রাই আইস প্যাক করা বিশেষ বক্সে নিয়ে যেতে হবে। ডেলিভারি হওয়ার পর তা পাঁচদিন ফ্রিজে রাখা যেতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা ইতোমধ্যে প্রাথমিক অগ্রাধিকার সংক্রান্ত তালিকা তৈরি করেছেন। এক্ষেত্রে যাঁদের সংক্রমণের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি, সে কথা মাথায় রেখেই এই তালিকা তৈরি হয়েছে। তালিকার প্রথমে রয়েছেন কেয়ার হোমের বাসিন্দা ও কর্মীরা। এরপর ৮০ বছরের বেশি লোকজন এবং স্বাস্থ্য ও সামাজিক পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীরা। আগামী সপ্তাহেই তাঁরা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ পেয়ে যাবেন।

৫০ বছরের ঊর্ধ্বে বা অপেক্ষাকৃত অল্প বয়সীদের টিকাদানের কাজ ভ্যাকসিনের সরবরাহ অনুযায়ী আগামী বছরের শুরুতেই হতে পারে। এই ভ্যাকসিনের জন্য ২১ দিনের ব্যবধানে দু’টি ডোজ দিতে হবে।






Related News