Main Menu

ময়মনসিংহে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হতে পারে ২-৩ দিনে

ময়মনসিংহের কেওয়াটখালিতে অবস্থিত ১৩২/৩৩ কেভি গ্রিড উপকেন্দ্রে অগ্নিকাণ্ডের পর এখনও জেলার ১২ উপজেলা ও মহানগরীতে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়নি। সরবরাহ স্বাভাবিক হতে আগামী দুই-তিন দিন সময় লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন ময়মনসিংহ পাওয়ার গ্রিডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান।

তিনি বলেন, পাওয়ার গ্রিডের তিনটি পাওয়ার ট্রান্সফরমারের মধ্যে একটি আগুনে পুড়ে গেছে। পুড়ে যাওয়া ট্রান্সফরমারটি সারিয়ে তোলার জন্য প্রকৌশলী এবং কর্মীরা কাজ করছেন। আশা করছি, আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যেই ট্রান্সফরমার সারিয়ে তোলার পর ময়মনসিংহের বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে।

প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান আরও বলেন, পাওয়ার গ্রিডের বাকি দুটি ট্রান্সফরমারের মধ্যে একটি ব্যবহার করে নেত্রকোনা, জামালপুর ও শেরপুরে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়েছে। অপরটি ব্যবহার করে ময়মনসিংহ মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় পালাক্রমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে জেলার ১২টি উপজেলা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে প্রশাসন এবং বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে উচ্চ পর্যায়ের দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা খতিয়ে দেখতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাহাঙ্গীর আলমকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অপর সদস্যরা হলেন ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক আবুল হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) শাহজাহান মিয়া, পিডিবির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ ও পিজিসিবির স্থানীয় নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান।

এছাড়া পিজিসিবি, পিডিবি এবং আরইবির পক্ষ থেকে পিজিসিবির নির্বাহী পরিচালক (অপারেশন অ্যান্ড মেইনটেন্যান্স) মাসুম আলম বকসিকে প্রধান করে গঠিত আরও একটি তদন্ত কমিটি ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে বলে জানান মাসুদুর রহমান।

এদিকে বিদ্যুতের অভাবে মহানগরীর বাসা-বাড়িতে পানি সমস্যা দেখা দিয়েছে। রান্না ও টয়লেটের কাজ সারতে বেকায়দায় পড়েছেন নগরবাসী। রান্না ও অন্যান্য কাজ সারতে অনেকে কয়েক কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে নলকূপ থেকে পানি সংগ্রহ করছেন। আবার কেউ কেউ নদী থেকেও পানি সংগ্রহ করছেন।

প্রসঙ্গত, দুপুর দেড়টার দিকে ময়মনসিংহের কেওয়াটখালীতে ১৩২/৩৩ কেভি গ্রিড উপকেন্দ্রে আগুন লেগে যায়। এরপর ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট ঘণ্টাখানেকের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুনে পাওয়ার গ্রিডের ট্রান্সফরমার পুড়ে যাওয়ায় ময়মনসিংহ বিভাগের চার জেলা ময়মনসিংহ, জামালপুর, শেরপুর ও নেত্রকোনা তাৎক্ষণিকভাবে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।






Related News