Main Menu

রাজধানীতে বসবে ১৬টি অস্থায়ী পশুর হাট

আগামী ১ আগস্ট অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঈদুল আজহা। সে হিসাবে ঈদের ১০ দিন আগে রাজধানীবাসীর জন্য কোরবানির পশু কেনার সুযোগ করে দিতে পশুর হাট চূড়ান্ত করেছে দুই সিটি করপোরেশন। দুই সিটি মিলিয়ে শেষ পর্যন্ত ১৬টি অস্থায়ী পশুর হাটের ইজারা চূড়ান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় পাঁচটি এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় ১১টি অস্থায়ী পশুর হাট বসছে। এর পাশাপাশি দুই সিটির স্থায়ী দুই পশুর হাটেও (গাবতলী ও সারুলিয়া) বিক্রি হবে কোরবানির পশু।করোনাভাইরাস সংক্রামণের ঝুঁকির মধ্যেও এ বছর কোরবানির পশুর হাটের জন্য রাজধানী ঢাকায় দুইটি স্থায়ী হাট ছাড়াও ২৪টি অস্থায়ী হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নেয় দুই সিটি করপোরেশন। কিন্তু ডিএনসিসির ১০টি এবং ডিএসসিসির ১৪টি হাটের ইজারার জন্য দুই দফা দরপত্র আহ্বান করেও কাঙ্ক্ষিত দর মেলেনি। ফলে সব হাট ইজারা দিতে পারেনি সিটি করপোরেশন দুইটি। শেষ পর্যন্ত ডিএনসিসি গত ১৩ জুলাই যে পাঁচটি হাটের ইজারা চূড়ান্ত করেছিল, সেই সিদ্ধান্তই বহাল রয়েছে। অন্যদিকে, দক্ষিণ সিটি গত ৮ জুলাই দ্বিতীয় দফাতেও পাঁচটির বেশি হাটের ইজারা চূড়ান্ত করতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত ১৯ জুলাই পর্যন্ত তৃতীয়বারের মতো দরপত্র জমা নেয় সংস্থাটি। তৃতীয় দফার দরপত্র খুলে ৯টি হাটের বিপরীতে ২০টি দর পাওয়া যায়। মঙ্গলবার (২১ জুলাই) এর মধ্য থেকে ছয়টি হাটের ইজারা চূড়ান্ত হয়েছে। বাকি তিনটি হাট জনস্বার্থ বিবেচনায় বাতিল ঘোষণা করেছে সংস্থাটি। অর্থাৎ ডিএসসিসিতে এবার মোট ১১টি পশুর হাট বসবে।

ডিএনসিসি’তে চূড়ান্ত ৫ হাট

ডিএনসিসির ইজারা চূড়ান্ত হওয়া হাটগুলো হলো— কাওলা-শিয়ালডাঙ্গা সংলগ্ন খালি জায়গা, উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টরের বৃন্দাবন থেকে উত্তর দিকে বিজিএমইএ পর্যন্ত খালি জায়গা, সম্পূর্ণ নতুন হিসেবে ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বাচল ব্রিজসংলগ্ন মস্তুল ডুমনি বাজারমুখী রাস্তার উভয়পাশের খালি জায়গা, ভাটারা সাঈদনগর ও আব্দুল্লাহপুর এলাকায় বেঁড়িবাধ সংলগ্ন মৈয়নারটেক শহীদনগর এলাকা।


এর আগে, ১৮ জুন ডিএনসিসি এলাকায় ১০টি অস্থায়ী কোরবানির পশুর হাটের ইজারার জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। যে পাঁচটি হাট ইজারা দেওয়া যায়নি, সেগুলো হলো— উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের ১ নম্বর ব্রিজের পশ্চিমের অংশ ও ২ নম্বর ব্রিজের পশ্চিমে গোলচত্বর পর্যন্ত সড়কের ফাঁকা জায়গা, ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের খেলার মাঠ, বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিং (আফতাব নগর) ব্লক-ই সেকশন ৩-এর খালি জায়গা, মোহাম্মদপুর বুদ্ধিজীবী সড়কসংলগ্ন (বছিলা) পুলিশ লাইন ও মিরপুর সেকশন ৬ ওয়ার্ড ৬ (ইস্টার্ন হাউজিং)।
করোনার ঝুঁকি এড়াতে ও কাঙ্ক্ষিত দর না পাওয়ায় উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের ১ নম্বর ব্রিজের পশ্চিমের অংশ এবং ২ নম্বর ব্রিজের পশ্চিমে গোলচত্বর পর্যন্ত সড়কের ফাঁকা জায়গা, ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের খেলার মাঠ ইজারা দেওয়ার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে হাটগুলো বাতিল করে গত দুই জুন একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ডিএনসিসি।
এ বিষয়ে ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. মোজ্জাম্মেল হক সারাবাংলাকে বলেন, আমরা আগেই তিনটি হাটের ইজারা সম্পন্ন করেছিলাম। করোনার ঝুঁকি বিবেচনায় আর কোনো হাট না বসানোর সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তবে আজ (সোমবার ১৩ জুলাই) জনস্বার্থে হাট বাড়ানোর বৈঠকে আরও দু’টি হাট (ভাটারা ও মৈয়নারটেক) ইজারার জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এসব হাটের জন্য কাঙ্ক্ষিত দর পাওয়া যায়নি। তবু জনস্বার্থে এসব এলাকায় হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কারণ ভাটারা এলাকার আশপাশে আর কোনো হাট না থাকায় সে এলাকার বাসিন্দাদের পশু কিনতে উত্তরা যেতে হতো। তাই এ সিদ্ধান্ত।
ডিএসসিসি’তে চূড়ান্ত ৫ হাটএদিকে, দক্ষিণ সিটিতে ৮ জুলাই দ্বিতীয় দফায় লিটল ফ্রেন্ডস ক্লাবসংলগ্ন গোপীবাগ বালুর মাঠ ও কমলাপুর স্টেডিয়ামসংলগ্ন বিশ্বরোড, আফতাবনগর ব্লক-ই, এফ, জি এর সেকশন ১ ও ২ নম্বর এলাকা, হাজারীবাগ লেদার টেকনোলজি কলেজ সংলগ্ন খালি জায়গা, উত্তর শাহজাহানপুর মৈত্রী সংঘের মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গা এবং পোস্তগোলা শ্মশানঘাট সংলগ্ন খালি জায়গাসহ মোট পাঁচটি হাট ইজারার জন্য চূড়ান্ত করা হয়।
বাকি হাটগুলোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে ১৯ জুলাই পর্যন্ত সময় দিয়ে তৃতীয় দফায় আহ্বান করা হয়। এই দফায় ৯টি হাটের বিপরীতে ২০টি দরপত্র জমা পড়েছিল। ২১ জুলাই মূল্যায়ন কমিটি এসব হাটের মধ্যে ছয়টি হাট ইজারার জন্য চূড়ান্ত ঘোষণা করেছে। বাকি তিনটি হাট বাতিল হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।
ডিএসসিসির ইজারা চূড়ান্ত হওয়া নতুন ছয় হাট হলো— মেরাদিয়া বাজার, দনিয়া কলেজ মাঠসংলগ্ন খালি জায়গা, ধূপখোলা মাঠ, সাদেক হোসেন খোকা মাঠের পাশে ধোলাইখাল ট্রাক টার্মিনাল, আমুলিয়া মডেল টাউন ও লালবাগের রহমতগঞ্জ খেলার মাঠ।
যে তিনটি হাট বাতিল করা হয়েছে, সেগুলো হলো— কামরাঙ্গীর চরের ইসলাম চেয়ারম্যানবাড়ির মোড় থেকে বুড়িগঙ্গার বাঁধ, শ্যামপুর বালুর মাঠ ও আরমানিটোলা মাঠ।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএসসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন সারাবাংলাকে বলেন, আমাদের পাঁটি হাটের ইজারা চূড়ান্ত হয়েছিল আগেই। বাকি ৯টি হাটের মধ্যে ছয়টির ইজারা আজ (মঙ্গলবার) চূড়ান্ত করা হয়েছে। সে হিসাবে দক্ষিণ সিটিতে এবারে ১১টি হাটে পশু বেচাকেনা চলবে।





Related News