Main Menu

যশ নাকি ইয়াস ?বাংলার দিকে ক্রমশ এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড়

বাংলার দিকে ক্রমশ এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস কিংবা যশ। আলিপুর আবহওয়া দফতর মারফত জানা গিয়েছে বঙ্গোপসাগরের পূর্ব মধ্য থেকে নিম্নচাপটি ঘনীভূত হয়ে আজ সকালে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে । ১৬.১ ডিগ্রি উত্তর অক্ষাংশে এই গভীর নিম্নচাপ অবস্থান করছে । পারাদ্বীপ থেকে ৫৯০ কিলোমিটার ও বালাসোর থেকে ৬৯০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে এই গভীর নিম্নচাপ । এই মুহূর্তে দীঘার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ৬৭০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে যশ । আলিপুর আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আগামীকাল সকালের মধ্যে এই অতি গভীর নিম্নচাপটি আরও ঘনীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে । এবং ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার পর উত্তর-পশ্চিম দিকে এগিয়ে যাবে । এর পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আরও শক্তিশালী হয়ে উঠবে ও সুপার সাইক্লোনে পরিণত হবে।

জানা গিয়েছে এই ঘূর্ণিঝড়টির নামকরণ করেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমান। আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, যে মহাসাগরে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয়, তার অববাহিকায় থাকা দেশগুলো এর নামকরণ করে। পৃথিবীতে মোট ১১টি সংস্থা ঝড়ের নাম ঠিক করে। ফারসি শব্দ যশ অর্থ এমন গাছ, যা সুগন্ধ ছড়ায়। এই শব্দ দ্বারা জেসমিন বা জুঁই ফুলকে বোঝায়। বাংলাদেশ, ভারত, মিয়ানমার, ওমান, পাকিস্তান, কাতার, সৌদি আরব, শ্রীলঙ্কাসহ ১৩টি দেশ নিয়ে গঠিত কমিটি এই নাম ঠিক করেছে। ওয়ার্ল্ড মেটেরোলজিক্যাল অর্গানাইজেশন ও ইউনাইটেড নেশনস ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল কমিশন ফর এশিয়ার সদস্য দেশগুলো ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ শুরু করে। যশ’র পর আরও যে ঘূর্ণিঝড়গুলোর নাম আগেভাগেই ঠিক করে রাখা হয়েছে, সেগুলো হলো গুলাব, সাহিন, জাওয়াদ, অশনি, সীতরাং, মানদৌস ও মোচা। সুত্র- ইনডিপেন্ডেন্ট ২৪






Related News