Main Menu

ঢাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না সাদা দল

বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার  সিদ্ধান্তের কথা জানায় সাদা দল।

এর আগে গত ৭ ডিসেম্বর শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের মনোনীত নির্বাচন পরিচালক অধ্যাপক জাকির হোসেন ভূইয়া নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন।

তফসিল অনুযায়ী, ৩০ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে ভোটগ্রহণ হবে। মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের শেষ সময় ছিল ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। ১৭ ডিসেম্বরের মধ্যে মনোনয়নপত্র জমা দিতে বলা হয়। ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে মনোনয়নপত্র বাছাই, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ও প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ সম্পন্ন হবে।

তবে করোনা পরিস্থিতি, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকা, অন্যান্য নির্বাচন না হওয়া ইত্যাদি কারণ  দেখিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়া থেকে বিরত থাকার ঘোষণা দেয় সাদা দল। ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সাদা দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. ওবায়দুল ইসলাম বলেন, ‘কোভিড-১৯ সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের আঘাতে প্রতি দিন মৃত্যু ও সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে। বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারেও এর প্রভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আমাদের সম্মানিত সহকর্মীরা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে আসলে যে লোক সমাগম হবে, তাতে সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়বে। গত মার্চ মাস থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাভাবিক অ্যাকাডেমিক ও প্রশাসনিক কাজ বন্ধ আছে। এমতাবস্থায় শিক্ষক সমিতির নির্বাচন শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষের মনে আমাদের সম্পর্কে বিরূপ ধারণার জন্ম দেবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে ৩৫ জন শিক্ষক প্রতিনিধি, সিন্ডিকেট, অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল, ফাইন্যান্স কমিটি এবং অনুষদগুলোর ডিনদের মেয়াদকাল অনেক আগেই অতিবাহিত হয়েছে। কিন্তু কোভিড পরিস্থিতিতে এসব নির্বাচন আয়োজনে কর্তৃপক্ষ কোনও উদ্যোগ নেয়নি। সেখানে কোভিড সংক্রমণ বাড়ার মারাত্মক ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও শিক্ষক সমিতির এ নির্বাচন আয়োজন কোনোভাবেই যৌক্তিক বলে আমরা মনে করি না।’

দীর্ঘ ২৮ বছর পর ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই ডাকসুর মেয়াদকাল শেষ হওয়ায় ইতোমধ্যে তা বাতিল করা হয়েছে। কোভিড পরিস্থিতির কারণে সে নির্বাচনও আয়োজন করা যাচ্ছে না।

অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সম্প্রতি গৃহীত সিদ্ধান্তে পরীক্ষা গ্রহণের ব্যাপারেও অনেক স্বাস্থ্যবিধি আরোপ করা হয়েছে। হলগুলো এখনও খুলে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। শিক্ষার্থীদের সমাগম নিয়ন্ত্রণে যেখানে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, সেখানে শিক্ষকদের সমাগম কোনোভাবেই যৌক্তিক নয় বলেও জানায় সাদা দল।

নীল দলের প্যানেলে চূড়ান্ত হলেন যারা

সভাপতি পদে অধ্যাপক ড. মো. রহমত উল্লাহ, সহ-সভাপতি পদে অধ্যাপক ড. সাবিতা রেজওয়ানা চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক পদে অধ্যাপক ড. নিজামুল হক ভুইঁয়া, কোষাধ্যক্ষ পদে অধ্যাপক ড. মো. আকরাম হোসেন, যুগ্ম-সম্পাদক পদে অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রহিম এবং সদস্য পদে রয়েছেন— অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান, অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, অধ্যাপক ড. এজেএম শফিউল আলম ভূঁইয়া, অধ্যাপক ড. ইসতিয়াক মঈন সৈয়দ, অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. আমজাদ আলী, অধ্যাপক ড. চন্দ্রনাথ পোদ্দার, অধ্যাপক ড. আবু সারা শামসুর রউফ, অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আব্দুল মঈন ও অধ্যাপক ড. নিসার হোসেন।






Related News