Main Menu

“অথ সারমেয় সমাচার” —-জাঁ-নেসার ওসমান

“অথ সারমেয় সমাচার”

“অথ সারমেয় সমাচার”
————জাঁ-নেসার ওসমান
সারমেয়, কুক্কুর, কুকুর, কুত্তা, ডগ, আপনি যে নামেই ডাকেন না কেন, বর্তমানে বাংলাদেশে বেওয়ারিশ কুকুর নিধন নিয়ে পক্ষে- বিপক্ষে বাংলার জনগণ তেতে উঠেছেন।
একদল বলছেন ডিসেম্বরের মাঝে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ্এলাকা থেকে বেওয়ারিস কুকুর অপসারণ করতে হবে। এদিকে অভিনেত্রী জয়ার সাথে, অভয়ারণ্য ও পিপলস ফর এ্যনিমেল ওয়েলফেয়ার, এই সিদ্ধান্তের বিপরীতে রিট আবেদন করেছেন।
এমনি এক লগ্নে মাননীয় মন্ত্রী মহিবুল হক চৌধূরী স্যার বলেছেন, যারা কুত্তার প্রতি অশেষ প্রেম দেখাইতেছেন, তারা এসি গাড়ী চড়ে বেড়ান, বেওয়ারিস কুকুরের জ্বালা তাদেও অনুধাবন করার কথা নয়।

উনবিংশ শতাব্দীর কবি সতেন্দ্র নাথ দত্ত, কুত্তার কামড়ের কথা বলতে বলেছেন,
“ কুকুরের কাজ কুকুর করেছে, কামড় দিয়েছে পায়, তা বলে কুকুরে কামড়ানো কি মানুষের শোভা পায় ??” কথাটা ঠিক। কিন্তু কথা হচ্ছে সারমেয় বা কুত্তার বাচ্চারা বড় হয়ে শহরে, বা ঢাকার দক্ষিণে বসবাস করার অনুমতি পাবে কি না??
কারণ ঢাকার কুকুর ইউরোপের কুকুর গুন্টার ফোর’এর মতো ধনী নয়। জার্মানের এই সারমেয় তাঁর মালিক কার্মোডা নাইলিস্কির মৃত্যুর. পর উইলানুসারে আট কোটি ডলারের মালিক বনে যান। আর এই গুন্টার ফোরের দেখভাল করারা লোকেরা পয়সা না মেরে, গুন্টার ফোরের আট কোটি টাকাকে ব্যবসায় খাটিয়ে ৬৪০০
( ছয় হাজার চার শত) কোটি টাকায় উন্নিত করেন। এই কুত্তা গুন্টার ফোর যে দামী গাড়ী চড়ে তা বাংলাদেশে গত পাঁচ’শ বছরে, কেউ চড়েনি আগামী দুই’শ বছরেও কেউ চড়বে কিনা সন্দেহ রয়েছে।
যেহেতু বাংলার কুত্তা গরিব আতএব গরিবের বৌ সবার ভাবি তাই লাত্থি তোমাকে খেতেই হবে।
অভিনেত্রী জয়া যতই নাচুক, লাত্থি তোমায় খেতেই হবে, কারণ তুমি গরিব।
যদিও চিকিৎসা বিজ্ঞাণের শুরুতে পশুদের. মানে কুত্তার দেহ ব্যবচ্ছেদ করে, ডাক্তাররা এ্যানাটোমি শিখেছেন । ফাদার অব্ মেডিসিন,হিপোক্রিট পর্যন্ত পশুকুলের ব্যবচ্ছেদের, পর মানব দেহের ব্যবচ্ছেদের, কথা বলেছেন।
মহাভারতে যুধিষ্ঠিরের স্বর্গারোহণের সময়, যুধিষ্ঠিরের সাথী একটি বেওয়ারিস কুকুর বা কুত্তা।
রবীন সন ক্রু’শো’র কুকুর, হোয়াইট ফ্যাং, ল্যাসি, পৃথিবীর আদি থেকে, শিল্পে সাহিত্যে কুকুরের অবস্থান বহু উর্ধে।
ইউরোপের কুত্তা ছয় হাজার কোটি টাকার মালিক। খালি আমার দেশের বেওয়ারিস কুকুর গরিব বলে ঢাকা শহরে, এঁর তাকার অনুমতি মিলবে না।
ভালো কতা আমার বেওয়ারিস কুকুর রাস্তায় জন্মায়, শেক্সপীয়ারের নাটক বুঝে না। শওকত ওসমানের, ক্রীতদাসের হাসি পড়ে না। জয়নুল- কামরুলের পেইন্টিং বোঝে না, তাই অশিক্ষিত বর্বর, বেওয়ারিস কুকুরকে ঢাকায় রাখা যাবে না। মানলাম!!
কিন্তু যখন দেখি তোমার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যায়গা না পেয়ে ভ্যানের মাঝেই মা, সন্তান প্রসব করেন।
প্রাইভেট ক্লিনিকের আয়ার ঝাড়ির চোটে ক্লিনিকে বেড না পেয়ে পাশের পরিত্যাক্ত বাড়ীতে সন্তান ডেলিভারি হয়।
আর এই সব বাচ্চা গরিব বলে শেক্সপীয়ারের নাটক বুঝে না। শওকত ওসমানের, ক্রীতদাসের হাসি পড়তে পারে না। জয়নুল- কামরুলের নামও শোনে না।
তাহলে এরা যদি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ্এলাকায় থাকতে পারে, তাহলে আমার কুত্তার দোষ কোথায়।
তোমার মানব সন্তানতো তিন বছরের মেয়েকে রেপ করে, শালা পিচাশ, বেøড দিয়ে যৌন্াঙ্গ কেটে বড় করে!
আরে, আমার কুত্তা তো রেপ করে, না।
তোমার বিশেষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ছাত্রদের, পি’মারে, সমকামী কর্মে লিপ্ত হয়।
কিন্তু ভাই আমার কুত্তা তো সমকামী না।
আমার কুত্তা মিছিল মিটিং করে, না, গায়ে তার পেঁচায়া বোমা ফাটায় না। ২১’শে আগষ্টের মতো বর্বরোচিত গ্র্যানেড মাইরা জর্জ মিয়া খুঁইজ্জা আনে না।
তায়লে আমার কুত্তা ঢাকায় থাকপেনা ক্যান ??
খালি আমরা গরিব বইল্লা যা ইচ্ছা তাই করবা??

তোমাগো প্রতিদিন লাইনে পয়সা দিতে পারে, না, তাই কুত্তা রাস্তায় বইতে পারবে না!!
মাননীয় মন্ত্রী কইছেন, এতো প্রেম থাকলে কুত্তা বাসায় নিয়া পালেন।
যেমন রাস্তায় মাইনষ্যের, বাচ্চা পইড়া থাকলে অনেকেই ওই বাচ্চা পালনের লাই¹া আগুইয়া আসে।
মাননীয় মন্ত্রী স্যার, আপনে কি জানেন ফ্ল্যাটের মইধ্যে স্বাতী দি, কুত্তা পালছিলো বইল্লা ওই ফ্ল্যাটের চোরা কমিটি, স্বাতী দিরে, খালি রেপ করা বাকি রাখছিলো।
বাপ বাপ বইল্লা, স্বাতী দি, কুত্তা’রে, ঢাকার রাস্তায় ছাইড়া দিয়া জান ও ইজ্জত রক্ষা করছে।
তাই বলি, অযথা তর্ক-বিতর্ক না করে, আপনারা আশ্রাফুল মাখলুকাত, একটু চেষ্টা করলে এই বেওয়ারিস কুকুরদের, অর্গানাইজ করে, দেশে যারা পালতে চায় তাদের. পালতে দিন ও একটু বুদ্ধি খরচ করে, কুকুর
বিদেশে রপ্তানী করে. প্রচুর বৈদেশিক মূদ্রাও অর্জন করতে পারেন।
অযথা বেওয়ারিস কুকুর নিধন বা অপসারণ স্থায়ী কোনো সমাধান নয়।
হে দেশবাসী আমার কুত্তা কি বলে জানেন? “যতদিন ভবে, না হবে না হবে/ তোমার অবস্থা আমার সম/
ঈষৎ হাসিবে, শুনে না শুনিবে/ বুঝে না বুঝিবে, যাতনা মম”।

জাঁ-নেসার ওসমান: চিত্র পরিচালক ও সমাজ সংস্কারক লেখক।

 






Related News