Friday, June 12th, 2020

now browsing by day

 
Posted by: | Posted on: June 12, 2020

বাজেটে রূপপুর-পদ্মাসেতুসহ ৭ মেগা প্রকল্পে সর্বোচ্চ গুরুত্ব


২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সাতটি মেগা প্রকল্পকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। বাজেটে মোট সাতটি মেগা প্রকল্পে ৩৪ হাজার ২৬৬ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এরমধ্যে সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেয়েছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। এই প্রকল্পে ১৫ হাজার ৬৯১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া স্বপ্নের পদ্মাসেতু নির্মাণ প্রকল্পে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে পাঁচ হাজার কোটি টাকা।
‘অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভবিষ্যৎ পথ পরিক্রমা’ শিরোনামে করোনাভাইরাসের সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে টিকে থাকা ও অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের প্রত্যাশা সামনে রেখে সরকারের তৃতীয় মেয়াদের দ্বিতীয় বছরে ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে বৃহস্পতিবার উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।
বৃহস্পতিবার বিকেল সোয়া ৩টার দিকে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত সংসদ অধিবেশনে ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য এ বাজেট উপস্থাপন শুরু করেন অর্থমন্ত্রী।
বাজেটে নতুন এডিপির আকার ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা ও বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৭০ হাজার ৫০১ কোটি ৭২ লাখ টাকা খরচ করা হবে। চলতি ২০১৯০-২০ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপির তুলনায় ১২ হাজার ২২৪ কোটি টাকা বেশি ধরা হয়েছে নতুন এডিপিতে। ফলে নতুন এডিপিতে ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ বেশি বরাদ্দ রাখা হয়েছে।
মেগা প্রকল্পের মধ্যে দোহাজারী থেকে রামু হয়ে কক্সবাজার এবং রামু থেকে মিয়ানমারের কাছে ঘুমধুম পর্যন্ত সিঙ্গেল লাইন ডুয়েলগেজ ট্র্যাক নির্মাণ প্রকল্পে ১ হাজার ৫শ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

নতুন এডিপিতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পে ১৫ হাজার ৬৯১ কোটি টাকা। দ্রুত উৎপাদনে যেতে বাংলাদেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এ প্রকল্পে বরাদ্দ বাড়ানো হলো বলে অর্থমন্ত্রী বাজেট বক্তৃতায় উল্লেখ করেন।
বাজেটে ৩শ ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ প্রকল্পে। পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নে এগিয়ে চলেছে দক্ষিণবঙ্গের স্বপ্নের প্রকল্প পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণকাজ। পায়রা বন্দর বাস্তবায়িত হলে সেখানকার চিত্র বদলে যাবে বলে অর্থমন্ত্রী জানান।
পদ্মাসেতুর বিষয়ে তিনি বলেন, করোনা সংকটের মধ্যেই চলমান পদ্মাসেতু প্রকল্পের কাজ। দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীদের চেষ্টায় মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে সেতুর ১৯ ও ২০ নম্বর পিলারের উপর ২৯তম স্প্যানটি স্থায়ীভাবে বসানো হয়েছে। এই প্রকল্পে ২০২০-২১ অর্থবছরে ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।
এছাড়া বাজেটে মেট্রোরেল-৬ প্রকল্পে ৪ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। পদ্মাসেতুর সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে পদ্মাসেতু রেল লিংক প্রকল্প। এই প্রকল্পে মোট ব্যয় দাঁড়াচ্ছে ৩৯ হাজার ২৪৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা।
বাজেটে কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়িতে নির্মাণাধীন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এক হাজার ২শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে এই কেন্দ্র থেকে। ২০২৪ সালে এ কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হবে। প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিতে বাজেটে ৩ হাজার ৬৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
Posted by: | Posted on: June 12, 2020

মাঝনদী-জাজিরার সংযোগ, দৃশ্যমান ৪ হাজার ৬৫০ মিটার সেতু

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের শেষ স্প্যানটি বসলো। বুধবার (১০ জুন) ৩১তম এ স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে সেতুর মাঝনদীর সাথে সংযোগ ঘটলো জাজিরার। ফলে জাজিরা থেকে মাঝনদী পর্যন্ত এক সাথে দৃশ্যমান এখন টানা ২৯টি স্প্যান। সব মিলে সেতু দৃশ্যমান ৪ হাজার ৬৫০ মিটার।  এরপর থেকে বাকি সব স্প্যান বসবে মাওয়া প্রান্তে।

অনেক দূর থেকে তাকালে মনে হয় সরু চুলের মতো একটা  লম্বা একটা রেখা নদীর উপর এপাশ থেকে ওপাশ চলে গেছে। মধ্যখানে শুধু একটা স্প্যানের বিরতি।  

জাজিরা পাড়ে টানা বসানো আছে ১৬টি স্প্যান, মাঝের একটির বিরতির পর মাঝনদীতে আবারও টানা বসানো আছে ১২টি। এবার মাঝেরটি বসানোর পালা।

বুধবার সকাল ৯ টায় মাওয়ার ইয়ার্ড থেকে স্প্যান নিয়ে সাড়ে ৩ কিলোমিটার দূরত্বে রওয়ানা দেয় ক্রেন। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় নদীর তীব্র স্রোত। মূল নদীতে স্রোতের বাধা পেরুনোর পর আবারও ক্রেন আটকে যায় নদীর তলদেশের পলির কারণে। ঘণ্টা দেড়েকের চেষ্টায় আবারও শুরু হয় কাজ। দুপুর ১ টা নাগাদ স্প্যান নিয়ে আসা যায় নির্ধারিত পিলারের কাছে। শুরু হয় বসানোর তৎপরতা।

সাম্প্রতিক সময়ে অন্য স্প্যানগুলো বসাতে দুই দিন করে সময় নেয়া হলেও দিনে দিনেই বসিয়ে ফেলার চেষ্টা করা হয় ৩১তম স্প্যানটি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইয়ার্ড থেকে নিয়ে এসে পিলারের উপর তুলতে সব মিলে সময় লাগে ৭ ঘন্টার বেশি।

এ স্প্যানটির ফলে এখন জাজিরার শেষ পিলারটি থেকে শুরু করে মাওয়ার দিকে টানা ২৯টি স্প্যান দৃশ্যমান করা হলো। মাওয়া প্রান্তে বসানো আছে মাত্র দুটি। সেতুর ৪১টির মধ্যে যে ১০টি স্প্যান বাকি আছে, তার সবগুলোই এরপর বসানো হবে মাওয়া প্রান্তে।

Posted by: | Posted on: June 12, 2020

বাজেটে মানবতা উপেক্ষিত: আমীর খসরু

জনগণের জীবন-জীবিকা ও মানবতার বিষয়টি এবারের বাজেটে উপেক্ষিত হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) বিকেলে জাতীয় সংসদে ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এবারের প্রস্তাবিত বাজেটের আকার ধরা হয়েছে ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকা। যা জিডিপির ১৭ দশমিক ৯ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদন- জিডিপিতে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এতে ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য রেকর্ড জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ দশমিক ২ শতাংশ।


বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী
Posted by: | Posted on: June 12, 2020

এবারের বাজেট জনকল্যাণমুখী: জাপা

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের এমপি বলেছেন, করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে এখন অস্থিরতা বিরাজ করছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী ২০২০-২০২১ সালের জন্য যে বাজেট পেশ করেছেন তা স্বাভাবিকভাবেই পূর্ণ করা সম্ভব নাও হতে পারে। তবুও সরকারের পক্ষ থেকে জনকল্যাণমুখী বাজেট দিতে চেষ্টা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) বিকেলে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে বাজেট পরবর্তী এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

জিএম কাদের বলেন, প্রয়োজনীয় খাতগুলোতে যথেষ্ট পরিমাণে বরাদ্দ নিশ্চিত করা হয়েছে। বাজেটে বড় ধরনের একটি ঘাটতি আছে। গত বছরের স্বাভাবিক পরিস্থিতির চেয়ে আয় এবার বেশি ধরা হয়েছে। যা পুরোপুরি বাস্তবায়ন হবে না। সেক্ষেত্রে আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি ধরা হয়েছে। তাই যথাযথ খাত নির্দিষ্ট করে যেন খরচ করা হয় এবং সেভাবেই বরাদ্দ দেয়া হয়, সেদিকে দৃষ্টি দিয়ে বাজেট বাস্তবায়ন করতে হবে।

জাপা চেয়ারম্যান আরও বলেন, বাজেট বাস্তবায়নটা চ্যালেঞ্জ হবে। যেহেতু আয়ের সাথে ব্যয়কে সমন্বয় করতে হবে এবং যথাযথ খাতকে প্রাধান্য দিয়ে বরাদ্দ ব্যবহার করতে হবে। স্বাস্থ্যখাত এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাত হয়ে দাঁড়িয়েছে বর্তমান বাস্তবতায়। তার সঙ্গে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী খাতেও যথেষ্ট বরাদ্দ দেয়া দরকার। নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারে এবং স্বাভাবিক ব্যবসা-বাণিজ্য স্বাভাবিক গতিতে পরিচালিত হতে পারে তার জন্য সরকারকে অর্থায়ন করতে হবে। এছাড়া যে অর্থ বরাদ্দ হবে তা যেন যথাযথভাবে খরচ হয়, সেজন্য সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে। দুর্নীতি মুক্ত ও অপচয় রোধ করে যথাযথভাবে জনকল্যাণে যেন বরাদ্দ ব্যয় হয় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। তবেই বাজেট জনকল্যাণমুখী হবে।

Posted by: | Posted on: June 12, 2020

বিএনপির বাজেট প্রতিক্রিয়া গতানুগতিক গল্প: কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির বাজেট প্রতিক্রিয়া আগে ভাগে তৈরি করা মনগড়া, গতানুগতিক পুরনো গল্প।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) সরকারি বাসভবনে বাজেট পরবর্তী তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা বলেন তিনি।

এবারের বাজেট ভিন্ন বাস্তবতায়, ভিন্ন বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে তৈরি উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ বাজেট করোনার বিদ্যমান সংকটকে সম্ভাবনায় রূপ দেওয়ার বাস্তবসম্মত প্রত্যাশার দলিল। তিনি বলেন, জীবনের পাশাপাশি জীবিকার চাকা সচল রাখতে শেখ হাসিনা সরকারের সাহসী সময়োচিত চিন্তার সোনালী ফসল এই বাজেট।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের