Monday, March 18th, 2019

now browsing by day

 
Posted by: | Posted on: March 18, 2019

মৎস্যজাত পণ্যে ভেজাল রোধে কারাদন্ডের বিধান মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

(বাসস) : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ মন্ত্রিসভার বৈঠকে মাছের খাবারে ভেজাল মিশ্রিতকরণ ও তা বিপণনের দায়ে তিনমাস থেকে দুই বছর পর্যন্ত কারাদন্ডের বিধান রেখে খসড়া আইনে নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের বলেন, “মৎস্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের ক্ষেত্রে মান নিশ্চিতকরণ ও ভেজাল বন্ধের লক্ষে তদারকি জোরদারের জন্য মন্ত্রিসভা আজ নীতিগতভাবে খসড়া ‘মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য উৎপাদন (পরিদর্শন ও মান নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৯’ অনুমোদন করেছে।”
তিনি জানান, প্রস্তাবিত আইনে তিনমাস থেকে দুই বছর পর্যন্ত কারাদন্ডের বিধান রাখা হয়েছে, আগে এই সাজা ছিল শুধু তিন মাস। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, মৎস্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের ক্ষেত্রে ভেজাল মিশ্রন জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতি বিবেচনায় শাস্তির পরিমাণ বৃদ্ধি করা হয়েছে।
শফিউল আলম বলেন, একটি দুষ্টচক্র প্রায়ই ইনজেকশনের মাধ্যমে পানি, স্টার্চ ও জেলি প্রবেশ করিয়ে মাছ রপ্তানি করায় দেশের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিল।
তিনি বলেন, ‘নতুন আইনের ফলে মৎস্য ও মৎস্যজাত সামগ্রিতে ভেজাল মেশানো বন্ধ এবং মান বজায় রাখতে সহায়ক হবে।’
মন্ত্রিসভার বৈঠকের শুরুতে ১৯৫২ সালের মহান ভাষা আন্দোলনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান এবং প্রায় সকল বিখ্যাত ব্যক্তিত্বের দ্বারা মাতৃভাষার প্রসার সংক্রান্ত বাংলা লেখা সম্বলিত ‘বাংলা ভাষার বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক গ্রন্থের একটি সংস্করণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেওয়া হয়।
প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে নকশাকৃত গ্রন্থটির মোড়ক উন্মোচন করেন। গ্রন্থটির প্রকাশক যাত্রী প্রকাশনী।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ি আইনটির খসড়া বাংলায় ভাষান্তর করা হয়েছে এবং আইনটিতে বড়ধরণের কোন পরিবর্তন আনা হয়নি। এতদিন পর্যন্ত ‘মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য উৎপাদন (পরিদর্শন ও মান নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাদেশ, ১৯৮৩’-এর মাধ্যমে মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য উৎপাদন ও বিপণনের মানের বিষয়টি পরিচালিত হতো।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, একইসঙ্গে মৎস্য ও মৎস্যজাতীয় পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণে ভেজালের দায়ে জরিমানার পরিমাণ ৫ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫ লাখ করা হয়েছে। একই ধরনের অপরাধের পুনরাবৃত্তিতে শাস্তি বেড়ে হবে দ্বিগুণ। অর্থাৎ এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট অপরাধীর ৪ বছরের কারাদন্ড হবে।
প্রস্তাবিত আইনে মৎস্য উৎপাদন বা সংরক্ষণে ক্ষতিকর উপাদান ব্যবহারের দায়ে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত প্রশাসনিক শাস্তির বিধান রয়েছে। মৎস্য ফার্মগুলোকে মাননিয়ন্ত্রক ব্যবস্থাপক নিয়োগ দিতে হবে। বৈশ্বিক দিক বিবেচনায় মাছের সংজ্ঞা আধুনিক করা হয়েছে।
সচিব বলেন, বর্তমানে চিনি উৎপাদনে আখ ছাড়াও তাল, খেজুর, গোলপাতা, সুগার বিট ও অন্যান্য ফসল ব্যবহৃত হওয়ায় বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট আইন, ১৯৯৬ বিদ্যমান এই আইনটির প্রতিস্থাপনে চিনিশস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট আইনটি প্রণীত হয়েছে।
তিনি বলেন, এছাড়া প্রস্তাবিত আইনে বিদ্যমান আইনের বড় ধরনের কোন পরিবর্তন হয়নি। তবে এতে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা কাউন্সিলের (বিসিএসআইআর) একজন প্রতিনিধি মনোনয়নের বিধান যুক্ত হয়েছে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, পোর্ট লাইটহাউজ অথরিটি শব্দগুলো বাংলাদেশ লাইটহাউজ এ্যাক্ট-২০১৯ এ সংযুক্ত হয়েছে। প্রস্তাবিত এ আইনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহারকারী সকল জাহাজকে লাইটহাউজ চার্জ দিতে হবে। লাইটহাউজ চার্জ বকেয়ার দায়ে কোন জাহাজকে আটক করা যাবে।
আলম বলেন, দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে নরীর ক্ষমতায়ন এবং দূরদর্শী নেতৃত্বের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘লাইফটাইম কন্ট্রিবিউশন ফর উইমেন এ্যাওয়ার্ড অর্জনে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানায় মন্ত্রিপরিষদ। ইনস্টিটিউট অব সাউথ এশিয়ান উইমেন (আইএসএডব্লিউ) প্রধানমন্ত্রীকে এই এ্যাওয়ার্ড প্রদান করে।
মন্ত্রিসভা বৈঠকে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্জের দু’টি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় ৫ জন বাংলাদেশীসহ ৫০ জনের নিহতের ঘটনায় শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়।

Posted by: | Posted on: March 18, 2019

আফগানিস্তানের প্রথম টেস্ট জয়

মাহাবুবুর রহমান চঞ্চলঃ 


 ঐতিহাসিক প্রথম টেস্ট জয়ের স্বাদ পেল আফগানিস্তান। দেরাদুনে সিরিজের একমাত্র টেস্টে আয়ারল্যান্ডকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে আফগানরা। এক ম্যাচের টেস্ট সিরিজটি ১-০ ব্যবধানে জিতে নিলো আফগানিস্তান। টেস্ট ইতিহাসে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই জয় তুলে নিলো আফগানরা। নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে প্রথম টেস্ট জয়ের মঞ্চ গতকালই তৈরি করে রেখেছিলো আফগানিস্তান।


তৃতীয় দিন শেষে আফগানদের সামনে ম্যাচ জয়ের সমীকরন ছিলো ৯ উইকেট হাতে নিয়ে আরও ১১৮ রান। জয়ের জন্য ১৪৭ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে তৃতীয় দিন ১ উইকেটে ২৯ রান করেছিলো আফগানিস্তান। এহসানউল্লাহ ১৬ ও রহমত শাহ ১১ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন।
চতুর্থ দিনও ব্যাট হাতে অবিচল ছিলেন এহসানউল্লাহ ও রহমত। প্রথম টেস্ট জয়ের আশায় উন্মুখ হয়ে ছিলেন তারা। তাই বড় জুটির প্রত্যাশায় সর্তকতার সাথে নিজেদের উইকেটে টিকিয়ে রেখেছিলেন এহসানউল্লাহ ও রহমত। সেই সাথে রানের চাকাও সচল রেখেছিলেন এই দুই ব্যাটসম্যান। ফলে দলের স্কোর শতরানের কোটা পেরিয়েও যায়। তারপরও বিচ্ছিন্ন হননি তারা। ধীরে ধীরে দলের লক্ষ্য পূরণের পথেই হাটতে থাকেন এ জুটি। এরমধ্যে দু’জনই তুলে নেন হাফ-সেঞ্চুরি। এহসানউল্লাহ’র প্রথম হলেও রহমতের ছিলো এটি দ্বিতীয় অর্ধশতক।
তবে দলীয় ১৪৪ রানে বিচ্ছিন্ন হন এহসানউল্লাহ ও রহমত। ৭২ রান করা রহমতকে শিকার করেন আয়ারল্যান্ডের বাঁ-হাতি স্পিনার ক্যামেরন ডউ। ১২১ বল মোকাবেলা করে ১২টি চার মারেন তিনি। এরপর উইকেটে গিয়ে ১ বলে ১ রানের বেশি করতে পারেননি মোহাম্মদ নবী। ১ রানের ব্যবধানে দুই ব্যাটসম্যানকে হারিয়েও চিন্তায় পড়তে হয়নি আফগানিস্তানকে। কারন জয় থেকে তখন মাত্র ২ রান দূরে দাঁড়িয়ে আফগানিস্তান। দলের প্রয়োজন মিটিয়ে আফগানিস্তানকে ঐতিহাসিক জয়ের স্বাদ দেন রহমত ও হাসমতুল্লাহ শাহিদি। রহমত ৮টি চার ও ২টি ছক্কায় ১২৯ বলে অপরাজিত ৬৫ ও শাহিদি ৮ রানে অপরাজিত থাকেন। ম্যাচ সেরা হয়েছেন আফগানিস্তানের রহমত।
এই সফরে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে জিতে আফগানিস্তান। পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ২-২ ব্যবধানে ড্র হয়।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
আয়ারল্যান্ড : ১৭২ ও ২৮৮ (বলব্রিনি ৮২, কেভিন ৫৬, রশিদ ৫/৮২)।
আফগানিস্তান : ৩১৪ ও ১৪৯/৩, ৪৭.৫ ওভার (রহমত ৭২, এহসানউল্লাহ ৬৫*, ডউ ১/২৪)।
ফল : আফগানিস্তান ৭ উইকেটে জয়ী।
ম্যাচ সেরা : রহমত শাহ (আফগানিস্তান)।
সিরিজ : এক ম্যাচের সিরিজ ১-০ ব্যবধানে জিতে নিলো আফগানিস্তান। সূত্র বাসস

Posted by: | Posted on: March 18, 2019

সুপ্রিমকোর্টে ১৩ দিনের অবকাশ শুরু

(বাসস) : সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগে অবকাশকালীন ছুটি শুরু হয়েছে আজ সোমবার থেকে। চলবে ৩০শে মার্চ পর্যন্ত। ৩১ মার্চ থেকে যথারীতি শুরু হবে সর্বোচ্চ আদালতের নিয়মিত বিচারিক কার্যক্রম। এ সময় নিয়মিত বিচারিক কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও আপিল ও হাইকোর্ট বিভাগে জরুরি বিষয় নিষ্পত্তির জন্য অবকাশকালীন বেঞ্চ রয়েছে।
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নির্দেশে অবকাশে জরুরি বিষয় নিষ্পত্তির জন্য চেম্বার কোর্ট ও হাইকোর্ট বিভাগে বেঞ্চ গঠন করা হয়েছে। আপিল বিভাগের চেম্বার কোর্ট বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী আগামী ১৯ ও ২৫শে মার্চ বেলা ১১টায় জরুরি বিষয় শুনবেন। আপিল বিভাগের রেজিস্ট্রার মো. বদরুল আলম ভূঞা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তি এ কথা জানানো হয়। যা সুপ্রিমকোর্টের ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করা হয়েছে।
হাইকোর্ট বিভাগের ডেপুটি রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ আক্তারুজ্জামান ভূঁইয়া স্বাক্ষরিত অপর এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, হাইকোর্টের ৪টি দ্বৈত বেঞ্চ এবং তিনটি একক বেঞ্চে অবকাশে জরুরি মামলা সংক্রান্ত কার্যক্রম চলবে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অবকাশকালীন সময়ে বিচারপতি মো. রইস উদ্দিন ও বিচারপতি মো. রিয়াজ উদ্দিন খান সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ ১৮, ১৯, ২০, ২৪, ২৫ ও ২৭শে মার্চ, বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ ১৮, ১৯, ২০, ২৫, ২৭ ও ২৮শে মার্চ এবং বিচারপতি সহিদুল করিমের একক বেঞ্চ ১৮, ১৯, ২০ ও ২৭শে মার্চ ফৌজদারি মোশন, ফৌজদারি আপিল এবং ফৌজদারি জামিনের আবেদনপত্র শুনবেন। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ ১৮, ১৯, ২০, ২৫ ও ২৭শে মার্চ সকল প্রকার রিট মোশন ও আবেদন শুনবেন।
বিচারপতি মো. শওকত হোসেন ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামান সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ ২৪, ২৫, ২৭ ও ২৮শে মার্চ এবং বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ১৮, ১৯, ২০, ২৭ ও ২৮শে মার্চ, বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের একক বেঞ্চে ১৮, ১৯, ২০, ২৭ ও ২৮শে মার্চ দেওয়ানি রিভিশন, রুল ও আবেদনের শুনানি হবে।
বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকাদর ও বিচারপতি কে , এম হাফিজুল আলম সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ দুদক সংক্রান্ত, মানি লন্ডারিং আইন সংক্রান্ত ফৌজদারী ও রিট মোশনসহ সকল প্রকার রিট বিষয়াদি ১৯,২০,২১,২৪,২৫ ও ২৭ মার্চ শুনবেন।

Posted by: | Posted on: March 18, 2019

বাংলা ভাষার বঙ্গবন্ধু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী

(বাসস) : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ভাষা আন্দোলন এবং বাংলা ভাষার প্রচারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান বিষয়ক একটি গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আজকের মন্ত্রিসভার বৈঠকের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘বাংলা ভাষার বঙ্গবন্ধু’ শিরোনামের গ্রন্থটির মোড়ক উন্মোচন করেন।
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী একেএম মোজাম্মেল হক, মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব এসএম আরিফ-উর- রহমান ও জার্নি পাবলিকেশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. খন্দকার বজলুল হক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
জার্নি পাবলিকেশন থেকে প্রকাশিত গ্রন্থটিতে ভাষা আন্দোলন ও বাংলা ভাষার প্রচারণায় বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক অবদান সচিত্র তথ্যসহ তুলে ধরা হয়েছে।

Posted by: | Posted on: March 18, 2019

প্যারিসে বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মদিন উদযাপিত

(বাসস) : প্যারিস বাংলাদেশ দূতাবাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মদিন এবং জাতীয় শিশু দিবস ২০১৯ উদযাপন করা হয়েছে।
উৎসবমুখর পরিবেশে শ্রদ্ধা ও ভালবাসার মধ্য দিয়ে দিবসটি অনুষ্ঠিত হয় বলে আজ প্যারিস থেকে ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
অনুষ্ঠানের শুরুতে রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন শিশু-কিশোরদের নিয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এসময় মুক্তিযোদ্ধা ও বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত ও বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। এছাড়া, দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়।
অনুষ্ঠানে প্যারিসে বসবাসরত সর্বস্তরের বাংলাদেশিরা উপস্থিত ছিলেন। দিবসটি উপলক্ষে চিত্রাঙ্কন ও বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ শীর্ষক কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
এছাড়া শিশু কিশোরদের অংশগ্রহণে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
রাষ্ট্রদূত উপস্থিত শিশু কিশোর এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে জন্মদিনের কেক কাটেন।
অনুষ্ঠানের শেষে প্রতিযোগীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। উল্লেখ্য, পুরষ্কার হিসেবে বঙ্গবন্ধুর জীবন অবলম্বনে রচিত গ্রাফিক নভেল- মুজিব অংশগ্রহণকারী সব প্রতিযোগীর হাতে তুলে দেন রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং নতুন প্রজন্মের কাছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।
বঙ্গবন্ধুর প্রতি তাঁর শ্রদ্ধা, ভালবাসা ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ ও তাঁর কর্মময় সংগ্রামী জীবনের উপর আলোচনা করেন এবং শিশু কিশোরদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শে জীবন গড়ার আহ্বান জানান।
রাষ্ট্রদূত বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শ নতুন প্রজন্মকে জানাতে প্রতিটি বাংলাদেশি পিতামাতার প্রতি আহবান জানান, যেন তারা বঙ্গবন্ধুর জীবন থেকে সততা, দেশপ্রেম, মানবতা, সহনশীলতা ও আত্মত্যাগের শিক্ষা অর্জন করতে পারে।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে সুখী ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায়, জাতির পিতার স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ গঠনে দৃপ্ত পদক্ষেপে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।