ani

Posted by: | Posted on: October 3, 2021

প্রেস ওয়াচ রিপোর্টঃ

আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, হিংসা থেকে দূরে রাখাই ছিল মহাত্মা গান্ধীর অন্যতম মূলমন্ত্র। সামরিক অস্ত্রের বিপরীতে, অহিংস অস্ত্র অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

শনিবার (২ অক্টোবর) বিকেলে তিনি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী গান্ধী আশ্রম ট্রাস্ট ক্যাম্পাসে মহাত্মা গান্ধীর ১৫২তম জন্মবার্ষিকী, আন্তর্জাতিক অহিংসা দিবস এবং নবরূপায়িত গান্ধী মেমোরিয়াল মিউজিয়ামের শুভ উদ্বোধন শেষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

আইনমন্ত্রী বলেন, আজ সারা বিশ্বে সম্প্রাদায়ে সম্প্রদায়ে জাতিতে জাতিতে যে বিদ্বেষ হিংসা ছড়িয়ে পড়েছে তা থেকে মানবজাতিকে রক্ষা করতে মহাত্মা গান্ধীর অহিংস বাণী প্রেরণা যোগায়। হিংসা দিয়ে পৃথিবীতে কখনো কোনো সমস্যার সামাধান হয়নি। সংঘাতমুক্ত সমাজ, সংঘাতমুক্ত পৃথিবী ও যুদ্ধমুক্ত বিশ্ব গঠনে মানুষকে গভীরভাবে অনুপ্রাণি করে মহাত্মা গান্ধীর দর্শন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, গান্ধীজির জন্মবার্ষিকীতে আজ আমরা শপথ করব, দেশে দেশে হিংসা বিদ্বেষ ও সংঘাত আমরা বন্ধ করব। একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে যেন উন্নয়নের মহোৎসব থেকে কেউ ঝরে না পড়ে। সবাইকে নিয়ে আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত সোনার বাংলা গড়ে তুলব।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, গান্ধীজির জীবন এবং তার বাণী আজও প্রাসঙ্গিক। তিনি ২০১৯ সালে মতাত্মা গান্ধীর সার্ধশততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত জাতিসংঘের একটি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য স্মরণ করেন।
 
প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, গান্ধীজির সাধারণ মানুষের প্রতি ভালোবাসা এবং অহিংসার আদর্শ তৎকালীন শাসকগোষ্ঠির নিপীড়ন ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামের দৃষ্টিভঙ্গি গঠনে অবদান রেখেছিল।
 
গান্ধী আশ্রম ট্রাস্টের সভাপতি বিচারপতি সৌমেন্দ্র সরকারের সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী, প্রাক্তন মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি।
 
অরোমা দত্ত এমপি, বালাদেশে জাতিসংঘের অন্তর্বর্তীকালীন প্রতিনিধি এবং আইএলওর কান্ট্রি ডিরেক্টর তৌম পাউতিআইনেন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান, পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ খায়রুল আনাম চৌধুরী সেলিম, যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন ও নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহীদ উল্যাহ খান সহেল, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ বক্তব্য দেন।