bb 1

: বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষে এপিক মনোলগ ’আমি শেখ মুজিব’ দশটির বেশি ভাষায় অনূদিত হয়েছে এবং অনুবাদ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ইতোমধ্যে নাটকটি আফ্রিকা, ইউরোপ এবং এশিয়ার কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠ্যসূচি ও সেমিনার কার্যক্রমে অন্তুর্ভুক্ত হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বাংলাদেশের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, সুইডেনের লুন্দ বিশ্ববিদ্যালয়, ভিক্স একাডেমী, যুক্তরাজ্যের ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয়, শ্রীলংকার ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং কেনিয়ার কিসি বিশ্ববিদ্যালয়।
ভাষাসমূহ হচ্ছে- সুইডিশ, স্প্যানিশ, ফরাসি, ফার্সি, নেপালি, সোয়াহিলি, রাশিয়ান, তামিল, ইংরেজি, জর্জিয়ান, জাপানি, হিন্দি, আরবি প্রভৃতি। সুইডিশ অনুবাদ নিয়ে কাজ করেছেন-আন্তর্জাতিকভাবে সমাদৃত অনুবাদক ক্রিস্টিয়ান কার্লসন, স্প্যানিশ অনুবাদক আদেলফো যারাযুআ, তামিল অনুবাদক জয়শঙ্কর শিভাগনানাম, নেপালি অনুবাদক রাজকুমার পুদাসাইনি, সুয়াহিলি অনুবাদক কেলভিন মটুকা, রাশিয়ান অনুবাদক আনা সামখারাদজে, জর্জিয়ান অনুবাদক মানানা মাতিয়াশভিলি, ফার্সি অনুবাদক মান্দানা হাইদারিয়ান, ফরাসি অনুবাদক রোলান্দ এন এনজিওজল উল্লেখযোগ্য।
শ্রীলংকার ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে নাটকটির তামিল প্রযাজনা মঞ্চে আসবে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটকের অধ্যাপক এবং কবি জয়শঙ্কর শিভাগনানাম নাটকটি নিয়ে কাজ করছেন। এদিকে, জাহাঙ্গীরাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যকলা বিভাগ নাটকটি মঞ্চে আনবে ২০২২ সালের মার্চ মাসে। নাট্যকলার শিক্ষক মহিবুর রউফ শৈবাল নাটকটির পরিচালনা করছেন।
যুক্তরাজ্যের সমাজ ও সংস্কৃতি উন্নয়ন কোম্পানি ওয়ার্ড৪ওয়ার্ড বিবিধ ভাষায় নাটকটি উপস্থাপন আর সেমিনারসহ নানা আয়োজন নিয়ে ২০২২ সালে বাংলাদেশ নেপাল, ওয়েলস এবং কেনিয়ায় একটু বড়সড় আন্তর্জাতিক উৎসব আয়োজনের লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু করেছে। এতে নেপাল থেকে ওয়ান ওয়ার্ল্ড থিয়েটারের পরিচালক রাজকুমার পুদাসাইনি, কেনিয়া থেকে কিস্ট্রেক থিয়েটার ইন্টারন্যাশনালের ক্রিস্টোফার ওকেমওয়া,বাংলাদেশ থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মহিবুর রউফ শৈবাল এবংওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয়ের সৃজনশীল লেখালেখির শিক্ষক ডমিনিক উইলিয়ামস এই উদ্যোগের সমন্বয় করছেন।
বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে লেখা আনিসুর রহমানের এপিক মনলগটির ইংরেজি সংস্করণের প্রকাশনা উৎসব একযোগে বাংলাদেশ, কেনিয়া, সুইডেন, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনষ্ঠিত হয় ২০২১ সালের জুন মাসে।
অনুষ্ঠানটি ঢাকায় গুলশান ক্লাব থেকে ইউরোপ, আমেরিকা এবং আফ্রিকা মহাদেশের সঙ্গে সমন্বয় করা হয়। বাংলাদেশ থেকে এ আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতা দেন বিজিএমইএর সাবেক সহসভাপতি মশিউল আজম সজল। গুলশান ক্লাবের এই অনুষ্ঠানে প্যানেলে অংশ নেন বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি, সংসদ সদস্য শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, তথ্য সচিব মো. মকবুল হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন নিসার হোসেন, বাংলাদেশ বস্ত্রকল সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন ও মো. মশিউল আজম সজল।
কেনিয়া থেকে যোগ দেন কিসি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্রিস্টোফার ওকেমওয়া, সুইডেন থেকে কবি ও প্রকাশক ক্রিস্টিয়ান কার্লসন, কবি লার্স হ্যাগার, যুক্তরাজ্য থেকে এপিক মনোলগটির সম্পাদক ডমিনিক উইলিয়ামস, মেলানি পেরি এবং নিউ ইয়র্ক থেকে কাথেরিন ফ্লেচার।
আন্তর্জাতিক প্রকাশনা সংস্থা ড্রাকোপিস প্রেস লন্ডন, নিউইয়র্ক এবং তালিন থেকে একযোগে প্রকাশ করে। বইটি আমাজনসহ অন্যান্য অনলাইন মাধ্যমে সারা দুনিয়া জুড়ে বিপণনের ব্যবস্থা করা হয়। এই উদ্যোগে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছেন বিজিএমইএর সাবেক সহসভাপতি মশিউল আজম সজল। এপিক মনোলগটির ইংরেজি সংস্করণের প্রচ্ছদে ব্যবহৃত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি এঁকেছেন শিল্পী রফিকুন নবী।আর বইয়ের ভেতরের প্রতিকৃতিগুলো এঁকেছেন শিল্পী নিসার হোসেন।
সুইডেনের নামকরা প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান স্মক্কাডল থেকে এপিক মনোলগটির সুইডিশ সংস্করণ প্রকাশিত হয় ২০২০ সালে।