btrc

জানা গেছে, গেল রোববার (১০ অক্টোবর) অনিবন্ধিত ও অননুমোদিত ১৭৯টি নিউজ পোর্টালের ডোমেইন বরাদ্দ বাতিলকরণসহ লিংক বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বিটিআরসিকে অনুরোধ জানায় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়। তবে তালিকায় ২৪ নম্বরে থাকা নিউজহান্ট ডটকম ডটবিডি নামে অনলাইন পোর্টালটির লিংক বন্ধ না করে চালু রাখার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়। এরই প্রেক্ষিতে তালিকায় থাকা অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলো বন্ধ করল বিটিআরসি।

এর আগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর দেশের সব অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধ কারার জন্য নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। আদেশের কপি হাতে পাওয়ার সাতদিনের মধ্যে এ আদেশ বাস্তবায়ন করে, তা প্রতিবেদন আকারে আদালতে জমা দেওয়ার জন্য তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন আদালত। এ সংক্রান্ত এক রিটে সম্পূরক আবেদনের শুনানি নিয়ে গত ১৪ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এর পরে ওই রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি গত ১৬ সেপ্টেম্বর প্রকাশ করা হয়। আদালতের আদেশে বলা হয়, দেশের সব অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের পাশাপাশি মানহানিকর তথ্য ও গুজব ছড়ালে নিবন্ধিত পোর্টালও বন্ধ করা যাবে। এরপর গত সোমবার (১১ অক্টোবর) পর্যন্ত অনিবন্ধিত ১৭৮টি অনলাইন সংবাদমাধ্যম বন্ধ করেছে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়।

আরও পড়ুন: অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধ ঠেকাতে হাইকোর্টে আবেদন

এর আগে গত ১৬ আগস্ট এ সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল কেন বন্ধ করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্টের একই বেঞ্চ।

ওইদিন এক সপ্তাহের মধ্যে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিটিআরসির চেয়ারম্যান ও প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের এ রুলের জবাব দিতে বলেছিলেন আদালত।

গত ৫ মে সংবেদনশীল সংবাদসহ যে কোনো খবর প্রকাশের ক্ষেত্রে সংবাদমাধ্যমগুলোর জন্য ‘নৈতিক নীতিমালা’ প্রণয়ন চেয়ে সংশ্লিষ্টদের প্রতি লিগ্যাল (আইনি) নোটিশ পাঠানো হয়। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিটিআরসির চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান নোটিশের পরও কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন আইনজীবী জারিন রহমান ও রাশিদা চৌধুরী নীলু।