dilhi

শক্তিশালী ঝড়ে বহু গাছপালা ও বিদ্যুতের খুঁটি রাস্তায় ওপর পড়ে সাময়িক বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল। ঝড়ের কারণে বাতিল করা হয় বেশ কয়েকটি ফ্লাইট। ভারি বৃষ্টিতে দিল্লির বিভিন্ন এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়।

পাশের গুরুগাঁও শহরেও আঘাত হানে ঝড়। এতে মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়েন শহরটির বাসিন্দারা। ভারতের আবহাওয়া দফতর জানায়, মঙ্গলবার (৩১ মে) দেশটির বিভিন্ন শহরে ঝড় আঘাত হানতে পারে।

এদিকে আসামে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। ভয়াবহ এ বন্যায় গৃহহীন হয়েছেন ৬ লাখের বেশি মানুষ, মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০ জনে। বৃহস্পতিবারও (২৬ মে) বন্যায় এক শিশুসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজ্যের দুর্যোগ মোকাবিলা দফতর।

আরও পড়ুন: আসামে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৪

কাছাড়, ডিমা হাসাও, হাইলাকান্দি, হোজাই, কার্বি আংলং পশ্চিম, মরিগাঁও জেলায় ভূমিধসে ৫ লাখ ৬১ হাজারের বেশি মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এছাড়া বন্যার কারণে রাজ্যজুড়ে প্রায় ৪৭ হাজার ১৩৯ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে। রাজ্যের ৬ জেলায় খোলা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৩০০ ত্রাণ শিবির। সেখানে ১৩ হাজার ৯৮৮ শিশুসহ প্রায় ৬৭ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে।

ধুবরি, ডিব্রুগড়, গোলাঘাট, নলবাড়ি, শিবসাগর, দক্ষিণ সালমারা, তিনসুকিয়া এবং উদালগুড়ি জেলায় ব্যাপক ভাঙনের খবর পাওয়া গেছে। বিভিন্ন জেলায় পানির স্তর এখনও বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে। বন্যার কারণে দুই লাখের মতো গবাদি পশু মারা গেছে।