jus

তারা সহকারী জজ ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পদমর্যাদার বিচারিক কর্মকর্তা। সোমবার (১৭ জানুয়ারি) বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের উপপরিচালক (যুগ্ম জেলা জজ) আবু হাসান খায়রুল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ইনস্টিটিউটে দুই মাসের বুনিয়াদি প্রশিক্ষণে আসেন ৭০ জন বিচারক।
আরও পড়ুন: ওমিক্রন ছেয়ে গেছে ঢাকায়, বললেন বিশেষজ্ঞরা

গত ৯ জানুয়ারি প্রশিক্ষণ শুরু হয়। সম্ভাব্য উপসর্গ দেখা দিলে ১৫ জানুয়ারি ৫ জন বিচারকের করোনো পরীক্ষা করা হয়। ফলাফল পজিটিভ আসে। তাৎক্ষণিক ক্লাস কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। প্রশিক্ষণ নিতে আসা বাকি সব বিচারকের পরদিন করোনা পরীক্ষা করা হয় তাদের মধ্যে ১৭ জনের ফলাফল পজিটিভ আসে। এ অবস্থায় ১৬ জানুয়ারি প্রশিক্ষণ স্থগিত করা হয়েছে।

বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের অপর এক কর্মকর্তা জানান, করোনায় আক্রান্ত বিচারকরা চিকিৎসকের পর্যবেক্ষণে আছেন। ইনস্টিটিউটে আইসোলশনে আছেন তারা। প্রশিক্ষণ নিতে আসা অপর বিচারকরা ইনস্টিটিউট ছেড়ে গেছেন।

এদিকে সময় সংবাদকে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) সাবেক বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও বর্তমান উপদেষ্টা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, ঢাকা শহরের পুরোটাই ওমিক্রন ছেয়ে গেছে আর ঢাকার বাইরে ডেল্টা এটা ঠিক আছে। কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হয়েছে গত সপ্তাহ থেকে। আমরা গণসংক্রমণ পর্যায়ে ঢুকে গেছি। দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে বলা যাবে অন্ততপক্ষে।
আরও পড়ুন: দেশে আরও ২২ জনের ওমিক্রন শনাক্ত
করোনার উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার জিআইএসএইডের তথ্যমতে সবশেষ, সোমবার (১৭ জানুয়ারি) দেশের ২২ জনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়। এ নিয়ে দেশব্যাপী ওমিক্রনে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৫ জনে। জার্মান এ সংস্থার হিসেবে ঢাকায় আক্রান্ত ৫২ জনের মধ্যে ১৮ জনই মহাখালীর বাসিন্দা। ঢাকার বাইরে একমাত্র জেলা হিসেবে যশোরে রয়েছে ৩ জন আক্রান্ত ব্যক্তি।