cr

Posted by: | Posted on: October 4, 2021

তবে দেশ ছাড়ার আগে বাংলাদেশ দলের বিশ্বকাপ যাত্রা নিয়ে নাটক কম হয়নি। ঘূর্ণিঝড় ‘শাহিন’-এর কারণে ওমানের মাসকাট বিমানবন্দরের সব ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় টিম টাইগার্সের বিশ্বকাপ যাত্রা নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী, টাইগার ক্রিকেটাররাও বিমানবন্দরে পৌঁছে যান। কিন্তু ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় তাদের ব্যর্থ মনোরথে আবার ফিরে যেতে হয়। এরপর শুরু হয় নতুন নাটক!

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মিরপুরের ক্রিকেট একাডেমি থেকে বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওনা হয় মাহমুদউল্লাহ বাহিনী। সেখানে গিয়ে তারা জানতে পারেন, ফ্লাইট একদিন পিছিয়ে গেছে। এরপর ক্রিকেটাররা বিমানবন্দর ছাড়তেই নতুন করে জানানো হয়, নির্ধারিত সময়েই ছাড়বে বিমান। অনন্যোপায় হয়ে সবাই আবারও বিমানবন্দরের উদ্দেশে ফিরে আসেন। এত নাটকের পর শেষ পর্যন্ত বিমানে উঠেছেন টাইগাররা।

এদিকে বিশ্বকাপ খেলতে দেশ ত্যাগের আগে টাইগার কাপ্তান মাহমুদউল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন। গত সিরিজগুলো আমরা যেভাবে খেলেছি সেভাবে দল হিসেবে যদি খেলতে পারি তাহলে আশা করি ভালো কিছুই হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা চেষ্টা করব বাছাইপর্বে ঠিকভাবে উতরে মূল পর্বে যেতে। যত বেশি সম্ভব ম্যাচ জেতা যায় সেই চেষ্টা থাকবে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আমাদের আগের রেকর্ড ভালো না। এবার চেষ্টা থাকবে নতুন করে রেকর্ড গড়ার।

ওমানে এক টানা চার দিনের অনুশীলনের পর ৮ অক্টোবর ওমান ‘এ’ দলের বিপক্ষে ম্যাচ খেলবে ডমিঙ্গোর শিষ্যরা। এরপর ৯ অক্টোবর সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাবে বাংলাদেশ দল। সেখানেও একদিনের রুম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। ১১ অক্টোবর থেকে পুনরায় শুরু হবে অনুশীলন।

এরপর আবুধাবিতে ১২ ও ১৪ অক্টোবর শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আর ১৭ অক্টোবর শুরু বিশ্বকাপ বাছাই মিশন। সুপার-১২তে খেলার যোগ্যতা অর্জনের জন্য প্রথম রাউন্ডে স্কটল্যান্ড, ওমান আর পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে লড়তে হবে বাংলাদেশকে।

এদিকে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ভেন্যু সংযুক্ত আরব আমিরাতেই চলমান আইপিএল খেলছেন সাকিব আল হাসান এবং মুস্তাফিজুর রহমান। তাই তাদের করোনা টেস্টের কোনো সুযোগ নেই। তবে যেহেতু দুজনই আইপিল জৈব-সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে আছেন, তাই তারা সরাসরি মাস্কাটে দলের সঙ্গে যোগ দিতে পারবেন বলে জানা গেছে।

আরও পড়ুন : দলে ফিরেই বাজিমাত সাকিবের

বিশ্বকাপের এবারের আসরে বাংলাদেশকে ‌’ডার্ক হর্স‌’ বলছে উইজডেন। সম্প্রতি এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে এমনটাই দাবি করেছে জনপ্রিয় এই সংবাদমাধ্যমটি। তবে বাংলাদেশকে ‌’ডার্ক হর্স’ বলার পেছনে কয়েকটি কারণও উল্লেখ করেছে সংবাদমাধ্যমটি।

বাংলাদেশ এখনো কাগজে-কলমে টি-টোয়েন্টি ফরমেটে অন্যদের মতো শক্তিশালী দল নয়। তবে সাম্প্রতিক পারফরমেন্স বেশ আশা জাগানিয়া। জিম্বাবুয়ে সিরিজ থেকে শুরু করে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত পারফরমেন্স করে টিম বাংলাদেশ। টানা তিনটি টি-টোয়েন্টি সিরিজে জয় পেয়েছে টাইগাররা। বাংলাদেশকে ‌’ডার্ক হর্স‌’ বলার পেছনে সাম্প্রতিক ফর্মকে একটি কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছে উইজডেন ইন্ডিয়া। সবশেষ ১৩ টি-টোয়েন্টির ৯টিতেই জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। আর টাইগারদের এই ফর্মই বিশ্বকাপের মঞ্চে এগিয়ে রাখবে বলে ধারণা সংবাদমাধ্যমটির।

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দল:
লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান সোহান, মেহেদী হাসান, সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, নাসুম আহমেদ, নাঈম শেখ, সৌম্য সরকার ও শামীম পাটোয়ারী।

স্ট্যান্ডবাই:
রুবেল হোসেন ও আমিনুল ইসলাম বিপ্লব