ec

Posted by: | Posted on: September 1, 2021

নিপপ-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রফেসর ডক্টর মেজর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ বলেছেন, শেখ হাসিনার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক পুনরুত্থান ঘটেছে। তাঁর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে ওয়েবেনার জুমে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিএনসিসিও অনুষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. কলিমউল্লাহ। সভাপতির বক্তব্যে প্রফেসর ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টে নিহত সকল শহীদের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন।

আজকের আলোচনায় সূচনা বক্তব্য প্রদান করেন দিনাজপুর বীরগঞ্জ উপজেলা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তরুণ প্রজন্মের ছাত্রনেতা গোলাম মুর্শিদ।তিনি বলেন বঙ্গবন্ধুর ডাকে একাত্তরে যেমন আমাদের দেশ স্বাধীন হয় ঠিক পনের আগস্টের ঘটনায় আমাদের পরাজয় হয়, আজকে তরুণ প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে মেনে চলি যা শুধু বঙ্গবন্ধু নামের মধ্যে থাকলে হবে না বঙ্গবন্ধু থেকে বিশ্ববন্ধুতে রূপান্তর করার জন্য কাজ করতে হবে। তিনি বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে ধারণ করে তরুণ প্রজন্মকে সামনে অগ্রসর হওয়ার আহ্বান জানান।সেই সাথে বঙ্গবন্ধুসহ সকল শহীদের আত্নার মাগফেরাত কামনা করার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর সকল খুনীদের বিচার দাবি করেন।

শোকাবহ আগস্ট উপলক্ষ্যে ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম জুমে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় নরসিংদী থেকে সংযুক্ত হয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য ও মনোহরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল মজিদ মাহমুদ সাদি। তিনি বঙ্গবন্ধুসহ সকল শহীদের আত্নার মাগফেরাত কামনা করেন। আজকের আলোচনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, এডভোকেট কাজী শরিফুল ইসলাম শাকিল। তিনি বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধুর অবদান স্মরণ করেন। ভারত থেকে সংযুক্ত ছিলেন কলামিস্ট ও গবেষক পিনাকী ভট্টাচার্য। তিনি বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক ভাবনা নিয়ে বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন।

বঙ্গবন্ধু সৈনিক মোঃ মাসুদ আলম মিল্টন চাঁদপুর থেকে বক্তব্য উপস্থাপন করে বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার অপর নাম বঙ্গবন্ধু। তিনি ৭ই মার্চের ভাষণে বাঙালী জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে জয় ছিনিয়ে এনেছেন। আজকের আলোচনা সভায় মূখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য উপস্থাপন করেন রয়েল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এর সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান জনাব দিপু সিদ্দিক। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন অবিসংবাদিত নেতা। তাঁর নিরলস প্রচেষ্ঠায় বাংলাদেশ পৃথিবীর বুকে স্বাধীন দেশ হিসেবে আত্নপ্রকাশ করেছে। বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রাম প্রসাদ বর্মণ বলেন, বঙ্গবন্ধুর অবদানের কারণে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করেছে।

জানিপপ ন্যাশনাল ভলেনটিয়ার, লেখক, ও গবেষক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বঙ্গবন্ধুর পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে বক্তব্য উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বৈদেশিক সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। ইঞ্জিনিয়ার মনজুরুল ইসলাম ১৫ আগস্টে সকল শহীদের আত্নার মাগফেরাত কামনা করেন। এছাড়াও আজকের সভায় বক্তব্য উপস্থাপন করেন মোঃ খাদেমুল ইসলাম।