Sunday, August 2nd, 2020

now browsing by day

 
Posted by: | Posted on: August 2, 2020

কবে কোথায় চিকিৎসা নেবেন খালেদা জিয়া?শর্তসাপেক্ষ মুক্তির মেয়াদ শেষ ২৫ সেপ্টেম্বর

চলতি বছরের ২৫ মার্চ সরকারের নির্বাহী আদেশে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে গুলশানের ভাড়াবাড়ি ‘ফিরোজাতেই’ আছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।  শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে উন্নতি না হওয়ায় পরবর্তী চিকিৎসা কার্যক্রম কবে নাগাদ শুরু হবে, এ নিয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেননি তিনি। এমনকি উন্নত চিকিৎসার স্বার্থে দেশের বাইরে যাবেন কিনা— তাও স্পষ্ট করে জানাননি খালেদা জিয়া।

শনিবার (১ আগস্ট) পবিত্র ঈদুল আজহার দিনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে শুভেচ্ছা-বিনিময়কালে এ সংক্রান্ত কোনও আলোচনা তিনি করেননি। বরং একাধিক সদস্য  জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে খালেদা জিয়া শারীরিকভাবে যে অবস্থায় আছেন, তাতে তার উন্নত চিকিৎসা এখন সময়ের দাবি। কিন্তু তিনি কী করবেন, তা বোঝা যাচ্ছে না। তবে তার আইনজীবীদের একজন জানিয়েছেন, ২৫ সেপ্টেম্বরের আগেই উন্নত চিকিৎসার গ্রাউন্ড দেখিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির সময়সীমা বাড়ানোর জন্য আবেদন করা হবে।

বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, শনিবার ঈদের দিন রাত আটটার দিকে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা চেয়ারপারসনের বাসায় প্রবেশ করেন। এরপর প্রায় ১০টার দিকে তারা বেরিয়ে আসেন। সাক্ষাতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পৌনে দুই ঘণ্টা সময় নিয়ে খালেদা জিয়া স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছেন, তার বাসার দ্বিতীয় তলায়। সামাজিক দূরত্ব ও সুরক্ষা সামগ্রী পরিধান করেই দলীয় নেত্রীর সঙ্গে শুভেচ্ছাবিনিময় করেছেন নেতারা। বৈঠক থেকে বেরিয়ে শনিবার রাতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা কথা বলেছি, ঈদের দিনে যেসব কথা বলা হয়। এতদিন ধরে আমরা একসঙ্গে কাজ করছি, সবার সুখে-দুঃখের কথাবার্তা আছে।’

স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আলোচনার মধ্যে করোনাভাইরাস মহামারির পরিস্থিতি, এই ভাইরাসের কারণে বিশ্বপরিস্থিতি, বন্যা ও বন্যায় আক্রান্ত মানুষ, দলীয় নেতাকর্মীদের মামলা-মোকাদ্দমা ও তার নিজের শারীরিক পরিস্থিতিও ছিল।

স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য বলেন, আমরা দলীয় সামর্থ্য নিয়ে কতটুকু কী করতে পারি, সেটা তিনি বলেছেন।

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্যের ভাষ্য— বিএনপি প্রধানের শারীরিক অবস্থা ভালো নেই। বাতের ব্যথা আগের মতোই রয়েছে। রুচি কম থাকায় খেতে পারছেন না নিয়মিত। কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানো দরকার। চিকিৎসকেরা এই সময়ে কী করবেন, সেটাও অনিশ্চিত হয়ে আছে। কিন্তু এই মুহূর্তে তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন।

তবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে রবিবার (২ আগস্ট) বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেড জাহিদ হোসেন বলেন, ‘ম্যাডামের শারীরিক বিষয় নিয়ে মহাসচিব কাল কথা বলেছেন। আমাকে বললে আমি বলবো আলহামদুলিল্লাহ।’

রাজনৈতিক কী বিষয়ে আলোচনা হয়েছে খালেদা জিয়ার সঙ্গে, এমন প্রশ্নে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা বলছেন, রাজনৈতিক আলাপের কোনও মানসিকতাই এই সময়ে নেই। তিনি করোনা পরিস্থিতি, টেস্ট কম হওয়া ও বন্যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। কর্মীরা বেশি ভালো নেই, মামলা-মোকাদ্দমা চলছে, গ্রেফতার চলছে— এ বিষয়টিতে তিনি মর্মাহত হয়েছেন। কোরবানির মাংস সংগ্রহ করে যে নিম্নবিত্তরা বিক্রি করেছে, ঈদের দিন ঢাকায় সেই মাংস কিনেছেন অনেক বিপদগ্রস্ত মধ্যবিত্ত, এ বিষয়টিও খালেদা জিয়াকে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত করেছে।

ভবিষ্যত রাজনীতি নিয়ে খালেদা জিয়া নতুন করে কিছু বলেননি, বলে দাবি করেন স্থায়ী কমিটির দুই সদস্য। তারা বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির যেভাবে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে, এই আলোচনার খবরটি তিনি জানেন। ফলে, আমরা সবাই  মিলে একটি অবস্থানে পৌঁছানোর পর হয়তো ম্যাডাম তার অবস্থান ব্যক্ত করবেন। বিএনপি সনাতনী ধারা থেকে বেরুতে চায়। তার সন্তান এখন দল পরিচালনা করছেন, তিনি চাইছেন সবকিছু ভালো করে আলোচনার মধ্য দিয়ে আসুক।

আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়ার শর্তসাপেক্ষ মুক্তির মেয়াদ শেষ হবে, পরের প্রক্রিয়া কবে নাগাদ শুরু হবে, এমন প্রশ্নে শনিবার রাতে সাক্ষাৎ শেষে  বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘এই বিষয়টা নিয়ে এখনও বিস্তারিত কোনও আলোচনা হয়নি। সময় আসলে আলোচনা হবে।’

তবে বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের একটি সূত্র জানায়, চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার বিষয়টি এখনও নিশ্চিত কোনও সিদ্ধান্তে পৌঁছায়নি।  তার শারীরিক যে কন্ডিশন তাতে দ্রুত তার চিকিৎসা শুরু করা প্রয়োজন। তবে দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি মিলিয়ে হয়তো এ মাসের মধ্যে এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত তিনি নিজে গ্রহণ করবেন। একইসঙ্গে মুক্তির পরবর্তী মেয়াদবৃদ্ধি করার বিষয়টিও হয়তো সরকারের দিকে ঠেলে দেবেন, এমনটিও চাইছেন কেউ-কেউ। সেক্ষেত্রে বিদেশে যাওয়ার বিষয়টি হয়তো তিনি বিলম্বিত করতে পারেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘ম্যাডামের মুক্তির সময় শেষ হওয়ার আগেই দরখাস্ত করা হবে।’

বিএনপির দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, শনিবার রাতের শুভেচ্ছাবিনিময় পর্বে খালেদা জিয়া দলের বর্তমান শীর্ষ নেতৃত্বকে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার পরামর্শ দিয়েছেন।

Posted by: | Posted on: August 2, 2020

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দেশের জনগণ সব সম্ভাবনা হারিয়ে ফেলে : প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা, ২ আগস্ট, ২০২০  : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার জন্য পুনরায় স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিকে অভিযুক্ত করে বলেছেন, জাতির পিতাকে হত্যার পর দেশের জনগণ তাঁদের সব সম্ভাবনা হারিয়ে ফেলে।
তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা আমাদেরকে স্বাধীনতা এনে দিয়ে গেছেন। দেশি-বিদেশি চক্র যারা এই স্বাধীনতা চায়নি এবং এতে বিশ্বাসও করতো না, এমনকি, স্বাধীনতা অর্জনে কোনরূপ সহযোগিতা পর্যন্ত করেনি, তারাই ষড়যন্ত্র করে তাঁকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে।
প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা আরো বলেন, তিনি এবং তাঁর ছোট বোন বিদেশে থাকায় ১৫ আগস্টের সেই ঘটনা থেকে প্রাণে বেঁচে যান। ‘কিন্তু দেশের জনগণ জাতির পিতাকে হত্যার পর তাঁদের সকল সম্ভাবনা হারিয়ে ফেলে, ‘উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘স্বাধীনতার পরে জাতির পিতার গতিশীল নেতৃত্বে দেশ যখন আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছিল ঠিক সে সময়ই তাঁকে হত্যা করা হয়।’ জাতীয় শোক দিবস ২০২০ উপলক্ষে আজ সকালে ধানমন্ডি ৩২নং বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ কৃষক লীগের উদ্যোগে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি এবং অনাথদের মাঝে ঈদ উপহার, মৌসুমী ফল ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী এসব বলেন। শেখ হাসিনা মোবাইল কল করে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মহামারির সময়ে সরকার জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে। মানুষ যাতে উন্নত জীবন পায় সেটাই আমাদের লক্ষ্য।
জাতির পিতার আদর্শ বাস্তবায়নে সরকার কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন,’মানুষ যাতে উন্নত জীবন পায় সেটাই আমাদের লক্ষ্য।’
সরকার ও দলের পক্ষ থেকে অসহায় মানুষের দ্বারে দ্বারে খাবার পৌঁছে দেওয়ার প্রচেষ্টা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গরিব, এতিম ও অসহায়দের মুখে খাবার তুলে দেয়ার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।’
তিনি দলের প্রত্যেক নেতা-কর্মীকে বঙ্গবন্ধুর জীবনী পড়ার এবং তাঁর আদর্শ বাস্তবায়নে ব্রতী হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, ‘এ জন্য জাতির পিতা সম্পর্কে সবাইকে জানতে হবে। বঙ্গবন্ধুর জীবনী পড়লে তাঁর আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করতে পারবেন।’
দুঃসময়ে জনগণের পাশে দাঁড়ানোয় আওয়ামী লীগ এবং এর সকল সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন,’করোনার এই সময়ে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলোও ভালো কাজ করছে।’
তিনি শোকের মাসে তাঁর পরিবারের সদস্যদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন এবং বলেন, ‘এই মাসে আমি আমার সবাইকে হারিয়েছি, তাঁদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।’
এ সময় তিনি বন্যাকবলিত মানুষের পাশে দাঁড়াতে দল ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের প্রতি ও উদাত্ত আহ্বান জানান।
ভিডিও কলের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন।
আরো বক্তৃতা করেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাছিম।
কৃষক লীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপি।(বাসস)

image_print
Posted by: | Posted on: August 2, 2020

সরকারের সফলতার দুর্গে একটি মহল ফাটল ধরানোর অপচেষ্টা করছে : ওবায়দুল কাদের

ঢাকা, ২ আগস্ট, ২০২০ (বাসস) : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্যোগ মোকাবিলায় যখন সরকার সফলতা দেখাচ্ছে, তখন একটি কুচক্রী মহল এ সফলতার দুর্গে ফাটল ধরানোর অপচেষ্টা করছে।
জাতীয় শোক দিবস ২০২০ উপলক্ষে আজ শনিবার (২ আগস্ট) ধানমন্ডি ৩২নং বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ কৃষক লীগের উদ্যোগে স্বেচ্ছায় প্লাজমা-রক্তদান কর্মসূচি এবং অনাথদের মাঝে ঈদ উপহার, মৌসুমী ফল ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে নিজ বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন ওবায়দুল কাদের।
আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে মাধ্যমে যুক্ত হয়ে কৃষকলীগ আয়োজিত স্বেচ্ছায় প্লাজমা-রক্তদান কর্মসূচি এবং অনাথদের মাঝে ঈদ উপহার, মৌসুমী ফল ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন নানা প্রতিকূলতা ও সীমাবদ্ধতা জয় করে মহাদুর্যোগের এ সময়ে জনগণের জন্য কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন এবং তার নির্দেশে দলীয় নেতাকর্মীরা মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন, তখন মিডিয়ার কল্যাণে টিকে থাকা বিএনপি সরকারের সমালোচনায় লিপ্ত হয়েছে।
আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তা নিয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আগস্ট এলেই বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নিরাপত্তা নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় থাকে পুরো জাতি, তার নিরাপত্তা নিয়ে সবাইকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে।
তিনি বলেন, এ আগস্ট মাসে জাতির পিতা ও তার পরিবারের সদস্যদের বর্বরোচিত হত্যাকান্ড সংঘঠিত হয়েছিল। ১৫ আগস্টের ধারাবাহিকতায় ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে টার্গেট করে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল। তার নিরাপত্তা নিয়ে সবাইকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে।
ওবায়দুল কাদের বলেন, যে কোনো দুর্যোগ এড়িয়ে না গিয়ে শেখ হাসিনা সুদক্ষ নাবিকের মতো হাল ধরেন। করোনা ভাইরাসের শুরু থেকে তার সুদক্ষ নেতৃত্ব ও দিকনির্দেশনার পরিপেক্ষিতে সংকট ঘনীভূত হয়নি৷ বন্যার শুরু থেকে সরকারের পক্ষ থেকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। শেখ হাসিনা বলেছেন, কেউ যেন না খেয়ে মারা না যায়৷ শেখ হাসিনার সরকার সব প্রতিকূলতা জয় করে কাজ করে যাচ্ছে। এ জন্য একটি মহল ঈর্ষান্বিত হয়েছে।
এ সময় তিনি করোনা মহামারির মধ্যে শোকের মাস আগস্টের শুরুতে রক্তদান ও প্লাজমা সংগ্রহ কর্মসূচি শুরু করায় কৃষকলীগকে ধন্যবাদ জানান।
কৃষক লীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপি।

Posted by: | Posted on: August 2, 2020

বাংলাদেশের খাদ্য নিরাপত্তা বাড়াতে ২০ কোটি ২০ লাখ ডলার অনুমোদন বিশ্বব্যাংকের

ঢাকা, ২ আগস্ট, ২০২০  : বিশ্বব্যাংকের বোর্ড অব এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টরস বাংলাদেশের মডার্ন ফুড স্টোরেজ ফ্যাসিলিটি প্রজেক্টের জন্য অতিরিক্ত ২০ কোটি ২০ লাখ মার্কিন ডলার অর্থায়নে অনুমোদন দিয়েছে। দেশের ৪৫ লাখ পরিবারের জন্য জাতীয় কৌশলগত শস্য মজুদ ৫ কোটি ৩৫ হাজার ৫শ টন করতে সংরক্ষণ সক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে এই অনুমোদন দেয়া হয়।
আজ বিশ্বব্যাংকের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এই প্রকল্প ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগ কিংবা কোভিড-১৯ মহামারির মতো সংকটের সময়ে বাংলাদেশের খাদ্য অনিশ্চয়তা মোকাবেলায় সহায়তা করবে।
প্রকল্পের আওতায় আটটি জেলায় ধান ও গম মজুদে সরকারি আটটি আধুনিক গুদাম নির্মাণে সহায়তা দেয়া হবে।
বর্তমানে আশুগঞ্জ, মাধবপুর ও ময়মনসিংহে এ ধরণের গুদাম তৈরির কাজ চলছে। অতিরিক্ত অর্থ ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও বরিশালে ধানের গুদাম এবং চট্টগ্রাম ও মহেশ্বরপাশায় গমের গুদাম নির্মাণে ব্যয় হবে।
বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, অতিরিক্ত এই অর্থ অনলাইন ফুড স্টক এন্ড মার্কেট মনিটরিং সিস্টেম (এফএসএমএমএস) এর মাধ্যমে শস্য মজুদ ব্যবস্থাপনা দক্ষতার উন্নয়ন এবং পরিবারগুলোর দুর্যোগোত্তর চাহিদা পূরণে শস্য মজুদ সক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেবে।
এছাড়া, এই প্রকল্প বিশেষ করে নারীদের জন্যে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।
বাংলাদেশ ও ভূটানে বিশ্বব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডাইরেক্টর মোহাম্মদ আনিস বলেন, বাংলাদেশের প্রায় ৮০ শতাংশ লোক গ্রামে বাস করে। তাদের জীবনযাপন, কল্যাণ ও খাদ্য নিরাপত্তা জলবায়ু পরিবর্তনজনিত হুমকির কবলে রয়েছে।
তিনি বলেন, আধুনিক এই খাদ্য মজুদ পদ্ধতি এবং কার্যকর বিতরণ পদ্ধতি যৌথভাবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ শেষে কিংবা বর্তমান কোভিড-১৯ মহামারির মতো সংকটকালে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে সহায়ক হবে।
এই প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংকের টিম লিডার ক্রিশ্চিয়ান বার্গার বলেন, বর্তমানে সরকারি খাদ্য বিতরণ ও শস্য গুদামে ২০ লাখ টন মজুদের সক্ষমতা রয়েছে। এসব গুদামের অধিকাংশের মান খুব খারাপ। ফলে, মজুদকৃত শস্যের গুণগত মান ও পুষ্টিমূল্য হারায়। এই প্রকল্প শস্য মজুদ দক্ষতাকে বাড়িয়ে তুলবে।

image_print
Posted by: | Posted on: August 2, 2020

১০ জেলার উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে

ঢাকা, ২ আগস্ট, ২০২০ : দেশের ১০ জেলার উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে বলে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে।
আজ সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরসমূহের জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এ কথা জানানো হয়েছে।
পূর্বাভাসে বলা হয়, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং সিলেট অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে দক্ষিণ/দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। সেই সাথে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।
এসব এলাকার নদীবন্দরসমুহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।(বাসস)