Main Menu

প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্লী সুবীর নন্দীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

(বাসস ডেস্ক) : রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ বিশিষ্ট গায়ক ও সুরকার সুবীর নন্দীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। একাধিক হার্ট এটাকের পরে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার কারণে আজ ভোরে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে জাতীয় পুস্কার বিজয়ী এই সংগীত শিল্পী শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
রাষ্ট্রপতি আজ এক শোক বার্তায় সুবীর নন্দীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন। সুবীর নন্দী ২০১৯ সালে একুশে পদক লাভ করেন।
সংস্কৃতি ক্ষেত্রে তার অবদান স্মরণ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, তার মৃত্যুতে দেশের সংস্কৃতির অঙ্গনে অপূরণীয় ক্ষতি হলো। সংগীত ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে তার অবদান জাতি দীর্ঘকাল স্মরণে রাখবে।
রাষ্ট্রপতি তার বিদেহী আত্মার মুক্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।
সুবীর নন্দীকে গত ৩০ এপ্রিল সিঙ্গাপুরে নেয়া হয়, এর আগে তিনি ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন ছিলেন।গত ১৪ এপ্রিল শ্রীমঙ্গল থেকে ট্রেনে ঢাকায় ফেরার সময় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে সিএমএইচ এ ভর্তি করা হয়। সিএমএইচ এর জরুরী বিভাগে নিয়ে যাওয়ার পর পরই এই শিল্পীর হার্ট এটাক হয়।

প্রধানমন্ত্রীর শোক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একুশে পদকপ্রাপ্ত কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দীর মৃত্যুতে আজ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
এক শোক বার্তায় প্রধানমন্ত্রী দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে এই প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পীর অবদানের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘পাঁচবার জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী এই কণ্ঠশিল্পী তার কাজের মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে আজীবন বেঁচে থাকবেন।’
প্রধানমন্ত্রী সুবীর নন্দীর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার পর সুবীর নন্দীর বেশ কয়েকটি অঙ্গ বিকল হয়ে পড়লে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোরে তিনি মারা যান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৩০ এপ্রিল তাকে সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে পাঠানো হয়।
এর আগে সিলেট থেকে ঢাকা আসার পথে ১৪ এপ্রিল সুবীর নন্দী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
তিনি মহানায়ক (১৯৮৪), শুভদা (১৯৮৬), শ্রাবন মেঘের দিন (১৯৯৯), মেঘের পরে মেঘ (২০০৪) ও মহুয়া সুন্দরী (২০১৫) চলচ্চিত্রে গানে কণ্ঠ দিয়ে পাঁচ বার শ্রেষ্ঠ পুরুষ কণ্ঠশিল্পী হিসেবে বাংলাদেশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। তিনি এ বছর একুশে পদক পান।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *